kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

কর্মচারীর ১৪ পদের ১২টিই শূন্য

ময়মনসিংহের বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ   

৬ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কর্মচারী সংকটে স্কুলের নিরাপত্তা, পরিচ্ছন্নতা, প্রশাসনিক কাজসহ সার্বিক কার্যক্রম চরম সমস্যার মুখোমুখি। দুরবস্থার এমন চিত্র ময়মনসিংহের বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের। অতি সম্প্রতি একজন কর্মচারী বদলির পর বিদ্যালয়ে কর্মচারী সংকটের এমন চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ পায়। বিদ্যালয়ের সংকট নিয়ে ময়মনসিংহের বিভিন্ন মহল মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখালেও নির্বিকার ভূমিকায় আছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের উপপরিচালক আবু নূর মোহাম্মদ আনিসুর ইসলাম চৌধুরী।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ময়মনসিংহের বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়টি ১৮৭৩ সালে প্রতিষ্ঠিত। এতে চতুর্থ শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান চলে। ছাত্রীসংখ্যা দুই হাজার ১৫০ জন। দুই শিফটে ক্লাস চলে এখানে। স্কুলটি সাম্প্রতিককালেও দেশসেরা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। শিক্ষার্থীবান্ধব স্কুলের বর্তমান প্রধান শিক্ষক নাছিমা আক্তারের প্রশংসা আছে সর্বমহলে। কিন্তু কর্মচারী সংকটে বর্তমানে স্কুলের স্বাভাবিক কাজ ব্যাপকভাবে বিঘ্নিত। প্রধান শিক্ষক নাছিমা আক্তার বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতি সামাল দিতে খুবই কষ্ট হচ্ছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। ’

বিদ্যালয়ে কর্মচারীর পদ মোট ১৪টি। এর মধ্যে ১২টি পদই শূন্য। চারজন অফিস সহায়কের মধ্যে একজন কর্মরত। তিনিও বেশ অসুস্থ। আবার স্কুলে সুইপার, ঝাড়ুদার, মালি, দারোয়ান, প্রহরী থাকার কথা পাঁচজন। এর মধ্যে আছেন মাত্র বয়স্ক একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী। পাঁচজন দপ্তরির একজনও নেই। বিদ্যালয়টির এমন দুরবস্থার কথা জানা যায় গত ১৮ নভেম্বর নাজমুল হক নামের একজন অফিস সহায়ককে বদলি করার পর।

কর্মচারী সংকটের কারণে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে নিরাপত্তার। অনেক সময় বখাটেরা প্রকাশ্যেই স্কুল আঙিনায় প্রবেশ করছে। এ ছাড়া বিদ্যালয়টি বিভিন্ন পাবলিক ও নিয়োগ পরীক্ষার কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এই কাজ বাস্তবায়নেও হিমশিম খাচ্ছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যালয়ের এমন কর্মচারী সংকটে নির্বিকার ভূমিকায় ময়মনসিংহের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের উপপরিচালক। উপপরিচালকের কার্যালয় থেকে এসব বিষয়ে দেখভাল করার কথা। কিন্তু ময়মনসিংহের বর্তমান উপপরিচালক আবু নূর মোহাম্মদ আনিসুর ইসলাম চৌধুরী। সম্প্রতি একজন সাংবাদিক তাঁকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বিষয়টি জানেন না বলে জানিয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার কালের কণ্ঠের প্রতিবেদক ফোনে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সমস্যাটি ঢাকায় জানিয়েছি। ’ তবে এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক অভিভাবক বলেন, একটি স্বনামধন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানে এমন সংকট সৃষ্টির জন্য যারা দায়ী, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।



সাতদিনের সেরা