kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

মাদারীপুরে সেতু আছে যোগাযোগ নেই

নির্মাণকাজের ৯৫ শতাংশ শেষ হয়েছে দাবি করে এরই মধ্যে পাঁচ কোটি টাকার বিল তুলে নিয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হামীম ইন্টারন্যাশনাল

মাদারীপুর সংবাদদাতা   

৬ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাদারীপুরে সেতু আছে যোগাযোগ নেই

মাদারীপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীগঞ্জের কুমার নদের ওপর প্রায় পৌনে সাত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতু। সংযোগ সড়ক না থাকায় সেতুটি কাজে আসছে না এলাকাবাসীর। ছবি : কালের কণ্ঠ

মাদারীপুরের কুমার নদের ওপর প্রায় পৌনে সাত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে সেতুটি। কিন্তু দুই পাশে সংযোগ সড়ক না থাকায় সেতুটি কোনো কাজেই আসছে না। তাই এত দিন ধরে যে আশায় বুক বেঁধেছিল অন্তত ছয় ইউনিয়নের মানুষ, তা আদৌ পূরণ হবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে তাদের মনে।

সরেজমিনে ঘুরে ও এলজিইডি সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের এপ্রিলে সদর উপজেলার লক্ষ্মীগঞ্জের কুমার নদের ওপর ৯৯ মিটার দীর্ঘ সেতুটির নির্মাণকাজ শুরু করে স্থানীয় সরকার অধিদপ্তর এলজিইডি মাদারীপুর অফিস।

বিজ্ঞাপন

এ জন্য মোট ব্যয় ধরা হয়েছিল ছয় কোটি ৬৯ লাখ টাকা। চলতি বছরের জুন মাসে কাজের মেয়াদ শেষ হয়; কিন্তু নির্মাণকাজের ৯৫ শতাংশ শেষ হয়েছে দাবি করে এরই মধ্যে পাঁচ কোটি টাকার বিল তুলে নিয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হামীম ইন্টারন্যাশনাল। অথচ এখনো শুরু হয়নি এর দুই পাশে ১০০ মিটার সংযোগ সড়কের নির্মাণকাজ। ফলে পাঁচখোলা, রাস্তি, কালিকাপুর, ছিলারচরসহ মাদারীপুর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের লক্ষাধিক মানুষের দুর্ভোগ বেড়েছে। জনস্বার্থে দ্রুত সংযোগ সড়ক নির্মাণ করে সেতুটি চালুর দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

স্থানীয়দের ধারণা, জেলা প্রশাসন আর এলজিইডির কর্মকর্তাদের মধ্যে সমস্যা সৃষ্টি হওয়ায় সংযোগ সড়ক নির্মাণকাজ হচ্ছে না। আর সংযোগ সড়ক না থাকায় তাদেরকে নৌকায় পারাপার হতে হচ্ছে। তারা চায় এটি দ্রুত চালু হোক।

এ ব্যাপারে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য একাধিকবার ফোন করা হলেও তা রিসিভ করা হয়নি।

স্থানীয় সরকার অধিদপ্তর এলজিইডির মাদারীপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী বাবুল আখতার বলেন, সংযোগ সড়কের জন্য জেলা প্রশাসন জমি বুঝিয়ে না দেওয়ায় পরবর্তী কাজ শেষ করা যাচ্ছে না। সেতুর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। ঠিকাদার যতটুকু কাজ শেষ করেছেন, ঠিক ততটুকু বিল দেওয়া হয়েছে। বেশি বিল দেওয়ার সুযোগ নেই।

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, দুই পাশে ১১০ মিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণের লক্ষ্যে জমি অধিগ্রহণের জন্য তিন কোটি ৪২ লাখ টাকা জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় জমা দিয়েছে এলজিইডি। ভূমি অধিগ্রহণে জমির মালিকানা নিয়ে জটিলতা রয়েছে। তবে তা দ্রুত সমাধানের চেষ্টা চলছে।



সাতদিনের সেরা