kalerkantho

সোমবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

করোনা পরীক্ষার ফি আত্মসাৎ

দেড় মাস পর মামলা

খুলনা অফিস   

১৯ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনা পরীক্ষার ফি আত্মসাৎ

প্রকাশ কুমার দাস

খুলনা জেনারেল (সদর) হাসপাতালে আড়াই কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনা প্রকাশের দেড় মাস পর মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তবে এই সময়ে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) প্রকাশ কুমার দাসের সন্ধান মেলেনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার উপসহকারী পরিচালক খন্দকার কামরুজ্জামান দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় খুলনায় এ মামলা করেন।

দুদকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, খুলনা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) প্রকাশ কুমার দাসের বিরুদ্ধে করোনা পরীক্ষার দুই কোটি ৫৭ লাখ ৯৭ হাজার ২০০ টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনা তদন্তের জন্য খুলনার সিভিল সার্জন ও হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক নিয়াজ মোহাম্মাদ পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেন।

কমিটি তদন্ত করে দেখেছে, প্রকাশ দায়িত্ব নেওয়ার পর ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত রেজিস্টার অনুযায়ী চার কোটি ২৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯০০ টাকা আদায় করেন। এর মধ্যে এক কোটি ৬৬ লাখ ৯৬ হাজার ৭০০ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেন।

বাকি দুই কোটি ৫৭ লাখ ৯৭ হাজার ২০০ টাকা আত্মসাৎ করেন। এ ঘটনায় থানায় প্রথমে সাধারণ ডায়েরি করা হয়। পরে দুদক প্রধান কার্যালয় ঢাকার অনুমোদনক্রমে মামলা করা হয়েছে।

বিভাগীয় কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক খন্দকার কামরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০ ধারা ও ৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় মামলা করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মাদের তথ্য অনুযায়ী, গত ২২ আগস্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এতে প্রতারণার বিষয়টি ধরা পড়ে। ২৩ সেপ্টেম্বর প্রকাশের হিসাব দেওয়ার কথা ছিল, কিন্তু ওই দিন দুপুরে অফিসে বসে হিসাব করার এক পর্যায়ে তিনি কাউকে কিছু না জানিয়ে অফিস থেকে চলে যান। এর পর থেকে তাঁর আর সন্ধান মেলেনি।



সাতদিনের সেরা