kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে বিপক্ষের ভোটারকে হুমকি, পরে মৃত্যু

রংপুরের পীরগাছা উপজেলার অন্নদানগর ইউপি নির্বাচন

পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি   

২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রংপুরের পীরগাছা উপজেলার অন্নদানগর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ভোট চাইতে গিয়ে এক পরিবারের তোপের মুখে পড়েন আওয়ামী লীগ দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম। এ ঘটনায় ওই পরিবারকে সালিসের মুখোমুখি করার হুমকি দেওয়ার পরপরই গৃহকর্তা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। গতকাল শুক্রবার দুপুরে ইউনিয়নের জগজীবন গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

মারা যাওয়া আকবর আলী (৪৫) ওই এলাকার মৃত আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে। আকবরের ছেলে মুকুল মিয়া ওই ইউনিয়নের আরেক চেয়ারম্যান প্রার্থী বিএনপি নেতা জিল্লুর রহমানের সমর্থক।

স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আমিনুল ইসলাম নির্বাচনী কাজে জগজীবন গ্রামে যান। তিনি আকবরের স্ত্রীর কাছে ভোট চাওয়ার সময় তাঁর ছেলে মুকুল বেরিয়ে এসে চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুলের সঙ্গে তর্কে জড়ান। এক পর্যায়ে আমিনুল তাঁকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন। পরে পাশের মমিন বাজারে গিয়ে মুকুলের বাবা আকবরের চায়ের দোকানে গিয়ে তাঁকেও অপমান করেন আমিনুল। তখন আকবর বাড়ি গিয়ে তাঁর ছেলেকে শাসন করার এক পর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি মারা যান।

আকবর আলীর ছেলে মুকুল মিয়া বলেন, চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম আমাকে ও আমার বাবাকে হুমকি দেন। আমাকে বলেন, ‘তাঁকে ভোট না দিয়ে অন্যজনের কাজ করি, আমরা এত সাহস কই পাই। তাঁর একটা মিটিং আছে সেটা শেষ করে এসে আমাদের বাবা-ছেলের বিচার করবেন। এ কথা শোনার পর আমার বাবা স্ট্রোক করে মারা যান।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আমি ভোট চাইতে গেলে মুকুল আমার সঙ্গে তর্কে জড়ায়। পরে শুনতে পারি তাকে শাসন করতে গিয়ে তার বাবা হার্ট অ্যাটাক করে মারা গেছে।’

তবে প্রতিপক্ষের চেয়ারম্যান প্রার্থী জিল্লুর রহমান বলেন, ‘মুকুল ও তাঁর বাবা আকবর আলী আমার সমর্থক। তাঁরা আমাকে ভোট দেবেন শুনে আমিনুল চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে সকালে তাঁদের বাড়িতে গিয়ে মুকুলকে ঘুম থেকে তুলে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন। পরে আকবর আলীকেও একইভাবে গালাগালের পর দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। এ ঘটনায় ভয়ে আকবর আলী হার্ট অ্যাটাকে মারা যান।’

পীরগাছা থানার ওসি আজিজুল ইসলাম বলেন, মারা যাওয়া আকবরের পরিবারের অভিযোগ না থাকায় মরদেহ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, দ্বিতীয় ধাপে পীরগাছা উপজেলার আটটি ইউনিয়নে আগামী ১১ নভেম্বর ভোটগ্রহণ হবে। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৬ অক্টোবর।



সাতদিনের সেরা