kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

টিকার অপেক্ষায় ৪০ হাজার

মণিরামপুর

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনার টিকার জন্য দুই মাস আগে স্ত্রীসহ নিজের নিবন্ধন করেছেন যশোরের মণিরামপুর উপজেলার সুবলকাঠি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. আসাদুজ্জামান। কিন্তু আজও টিকার মেসেজ পাননি তিনি। একইভাবে দুই মাস আগে পরিবারের সবার টিকার নিবন্ধন করেছেন নেহালপুর গ্রামের ইজি বাইকচালক লিটন হোসেন। তিনিও মেসেজ পাননি।

নিবন্ধন করে মেসেজের এমন অপেক্ষায় আছে মণিরামপুরের ৪০ হাজারের বেশি মানুষ। অপেক্ষায় আছে দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারীরাও। প্রথম ডোজ নেওয়ার প্রায় দুই মাস পার হলেও মেসেজ পায়নি তারা। কবে মেসেজ আসবে ও কবে টিকা পাওয়া যাবে, সেটা জানে না তারা।

হাসপাতাল সূত্র বলছে, ৪০ হাজারের বেশি টিকার আবেদনকারী আছে। মাঝে টিকার সমস্যা ছিল। এখন সেটা কেটে গেছে। টিকা আসছে। সাড়ে চার হাজার টিকা মজুদ আছে। নিয়মিত ৪৫০-৫০০ জন নিবন্ধনকারী টিকা নিচ্ছে।

শিক্ষক আসাদুজ্জামান বলেন, ‘করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক মাস চিকিৎসাধীন ছিলাম। সুস্থ হয়ে টিকার নিবন্ধন করেছি। এখনো মেসেজ পাইনি।’

মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকাকেন্দ্রে দায়িত্ব পালনকারী উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল কর্মকর্তা আলেক উদ্দিন বলেন, ‘প্রতিদিন গড়ে ৪৫০-৫০০ জন টিকা পাচ্ছে। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর দ্বিতীয় ডোজের জন্য সর্বনিম্ন ২৮ দিন অপেক্ষা করতে হবে। এরপর তারা মেসেজ পাবে। যারা মেসেজ পাচ্ছে, তারা যেকোনো দিন হাসপাতালে এসে টিকা নিতে পারবে।’

মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শুভ্রা দেবনাথ বলেন, ‘৪০ হাজারের ওপর টিকার নিবন্ধনকারী আছে। মাঝে টিকার সমস্যা ছিল। এখন সেটা কেটে গেছে। আবেদনকারীদের সিরিয়ালি টিকা দেওয়া হচ্ছে। ধীরে ধীরে সবাই-ই টিকা পাবে।’



সাতদিনের সেরা