kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

টয়লেটে ছাত্রী আটকা তদন্তে দুই কমিটি

চাঁদপুর প্রতিনিধি   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে হোসেনপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের টয়লেটে বাকপ্রতিবন্ধী ছাত্রীর আটকে পড়ার ঘটনায় আলাদা দুটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গিয়াসউদ্দিন পাটোয়ারী ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিরিন আক্তার গতকাল শনিবার সকালে স্কুলে যান। দুপুর পর্যন্ত তদন্ত করেন তাঁরা। অন্যদিকে স্কুলটির অন্য ছাত্রীরাসহ এলাকাবাসী ঘটনার কারণ খুঁজে বের করার পাশাপাশি দায়ীদের শাস্তি দাবি করেছে।

জানা যায়, শারমিন আক্তার হোসেনপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী। জন্মের পর থেকেই সে বাকপ্রতিবন্ধী। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে স্কুলের টয়লেটের ভেতর রেখেই দরজায় তালা মেরে দেন চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী শাহান আরা।

রাতে স্কুলের সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় টয়লেটের ভেন্টিলেটর দিয়ে কারো হাত দেখতে পান পথচারী আল আমিন। সঙ্গে সঙ্গে সেখানে ছুটে যান তিনি। এরপর আরো লোকজন ডেকে এনে টয়লেটের তালা ভাঙেন। দীর্ঘ ১১ ঘণ্টা পর উদ্ধার হয় শারমিন।

তবে অভিযুক্ত শাহান আরার দাবি, ‘সব কিছু দেখেশুনে টয়লেটের তালা মেরেছি।’

ইউএনও শিরিন আক্তার বলেন, ‘জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশের নির্দেশে সরেজমিনে ঘুরে প্রকৃত ঘটনা জানার চেষ্টা করছি। তদন্ত চলছে। কে দায়ী, তা চিহ্নিত করে দু-এক দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেব।’ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গিয়াসউদ্দিন বলেন, ‘কার ভুলের কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে, তা জানিয়ে শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রতিবেদন পাঠাব।’



সাতদিনের সেরা