kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৮। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৫ সফর ১৪৪৩

চলে গেল সেই কনে

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর   

২ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চলে গেল সেই কনে

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ মর্গের সামনে গতকাল মেয়ের লাশের অপেক্ষায় কান্নারত বাবা তোয়াব আলী। ছবি : কালের কণ্ঠ

রংপুরের বদরগঞ্জে বিয়ের দিন বখাটের ছুরিকাঘাতে আহত সেই তারমিনা আক্তার ওরফে ফুলতি (১৪) সবাইকে কাঁদিয়ে চলেই গেল। ঘটনার পাঁচ দিন পর গতকাল রবিবার সকালে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যায় সে। 

তারমিনা উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়নের সাজানো গ্রামের তোয়াব আলী ও পারভিন আক্তার দম্পতির মেয়ে। সে লোহানীপাড়া দাখিল মাদরাসার নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। তার এমন করুণ মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

বখাটের অত্যাচারের কারণে তড়িঘড়ি তারমিনার বিয়ে ঠিক করেন মা-বাবা। গত বুধবার বিয়ের দিন ভোরে তাদের বাড়িতে এসে কনে তারমিনাকে ছুরিকাঘাত করে মিঠাপুকুর উপজেলার বড়বালা এলাকার বখাটে শাখাওয়াত হোসেন। ঘটনার পরদিন ঘাতক শাখাওয়াতের বিরুদ্ধে বদরগঞ্জ থানায় মামলা হয়। কিন্তু পুলিশ গতকাল পর্যন্ত তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

তারমিনার মামা মানিক মিয়া বলেন, ‘শনিবার রাত ৯টার দিকে শেষবারের মতো কথা বলেছিল তারমিনা। এর পর থেকে সে জ্ঞানহারা ছিল।’

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. হামিদুল ইসলাম বলেন, মেয়েটিকে সুস্থ করে তোলার জন্য সব ধরনের চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু তার বুক ও পেটের মাঝামাঝি স্থানে রক্তনালি কেটে যায়। মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে পেটের ভেতরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে সে মারা যায়।

বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানান, ওই ছাত্রীর মৃত্যুতে আগের মামলাটি হত্যা মামলা হিসেবে গণ্য করা হবে। আসামিকে ধরার চেষ্টা চলছে।



সাতদিনের সেরা