kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩ আগস্ট ২০২১। ২৩ জিলহজ ১৪৪২

‘শাহিনকে ভোট না দিলে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না’

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

১৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার ইউপি নির্বাচনে পৃথক ঘটনায় ১৭ জন আহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে কনকদিয়া ও কেশবপুরে ওই সব ঘটনা ঘটে। ইউপি সদস্য প্রার্থী খবির হোসেন গাজী অভিযোগ করেন, ‘শাহিন হাওলাদারের নেতৃত্বে দুটি মাইক্রোবাস ও প্রায় ২৫টি মোটরসাইকেল আসে। এলোপাতাড়িভাবে আমাকেসহ কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলা চালায় তারা। এতে ১৫ জন আহত হন। তখন হামলাকারীরা শাহিনের নৌকায় ভোট না দিলে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না বলে হুমকি দেন।’ তবে শাহিন হাওলাদার এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।

এ ছাড়া বরগুনার আমতলী উপজেলায় ইউপি নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, তত সংঘাতে জড়িয়ে পড়ছেন প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান ও সদস্য পদপ্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা। গত এক সপ্তাহে ছয় ইউপির মধ্যে পাঁচটিতে বেশ কয়েকটি সংঘর্ষে অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন। বাড়ছে দেশীয় অস্ত্রের ব্যবহার।

অন্যদিকে, ঝালকাঠিতে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার রাতে নৌকা প্রতীকের দুটি কার্যালয় আগুনে পুড়িয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। পরে একটি কার্যালয় ভাঙচুর করে তারা। বরগুনার বেতাগী উপজেলার কাজিরাবাদ ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর কর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীদের প্রচারে বাধা ও হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ। হামলার অভিযোগও পাওয়া গেছে।

ঝালকাঠির নলছিটির দপদপিয়া ইউনিয়নের তিমিরকাঠিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ছোহরাব হোসেন বাবুল মৃধার একটি কার্যালয়ে আগুন দেওয়া হয়েছে। এতে পোস্টার, ছবি, ব্যানার ও আসবাব পুড়ে গেছে। এ ছাড়া রাজাপুর উপজেলার গালুয়া ইউনিয়নের চারাখালীতে নৌকার একটি কার্যালয়ে আগুন দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে সদর উপজেলার কীর্ত্তিপাশা ইউনিয়নে নৌকার কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর করে প্রতিপক্ষ।



সাতদিনের সেরা