kalerkantho

শনিবার । ১০ আশ্বিন ১৪২৮। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৭ সফর ১৪৪৩

১৭ বছর দুই নেতার কবজায় যুবলীগ

রফিকুল ইসলাম, রাজশাহী   

২৪ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



১৭ বছর দুই নেতার কবজায় যুবলীগ

রাজশাহী মহানগর যুবলীগের দুই শীর্ষ পদ ১৭ বছর ধরে আঁকড়ে আছেন দুই নেতা। তাঁরা হলেন মহানগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী ও সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন বাচ্চু।

অভিযোগ উঠেছে, বাচ্চু বয়সের ভারে অনেকটাই ন্যুব্জ। অন্যদিকে পদ আঁকড়ে ধরে রেখে শূন্য থেকে অগাধ সম্পদের মালিক বনে গেছেন রমজান আলী। ১৭ বছর ধরে দুটি পদ ধরে রাখা এই দুই নেতা চাচ্ছেন না সম্মেলন। সম্মেলন না হলে তাঁরা দুজন আরো দীর্ঘ সময় পদে থাকতে পারবেন। আর সম্মেলন হলে ছিটকে যাবেন দুজনই। আসবে নতুন মুখ। ফলে দ্রুত রাজশাহী মহানগর যুবলীগের সম্মেলনের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তাঁদের দাবি, সংগঠনকে শক্তিশালী করতে নতুন কমিটির কোনো বিকল্প নেই। আবার সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে পদ পেতে এরই মধ্যে অনেকে লবিং-গ্রুপিং শুরু করেছেন। বিশেষ করে সভাপতি-সম্পাদক পদ পেতে অন্তত ১৫ জন নেতা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

মহানগর যুবলীগ সূত্র মতে, ২০০৪ সালের ১৮ এপ্রিল মহানগর যুবলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন হয়। ওই সম্মেলনে রমজান আলীকে সভাপতি এবং মোশাররফ হোসেন বাচ্চুকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। পরে ২০১৬ সালের সম্মেলনেও তাঁদের দুজনকে একই পদে বহাল রাখা হয়। এরপর ১১১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রমজান আলী তাঁর ছেলে রায়হানুর রহমান রয়েলকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ঠাঁই দেন। বিষয়টি নিয়ে চরম ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে ওই সময় কালের কণ্ঠে একটি খবর প্রকাশিত হলে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয় রয়েলকে। তবে তার পরও বিতর্ক পিছু ছাড়েনি রমজান আলীর। বিভিন্ন সময়ে তাঁর বিরুদ্ধে জমি দখল, রেলের টেন্ডারবাজি, স্টেশনের ভবন পানির দরে লিজ নেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ উঠতে থাকে।

অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন বাচ্চুর বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ না থাকলেও তিনি সংগঠনকে তেমন সময় দেননি বলে ক্ষোভ রয়েছে নেতাকর্মীদের মাঝে। দ্রুত নতুন কমিটি দেওয়ার জন্য পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীরা এরই মধ্যে কেন্দ্র ছাড়াও রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের কাছে দাবি জানিয়েছেন।

দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, কেন্দ্রীয় নেতারাও চাইছেন রাজশাহী মহানগর যুবলীগের কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি দ্রুত হোক। কিন্তু দেশজুড়ে করোনার কারণে মহানগর যুবলীগের সম্মেলন করা যাচ্ছে না। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বলেও আশা করছেন তাঁরা।

এদিকে সংগঠন সূত্রে মতে, এবার সভাপতি পদে অন্তত চারজন এবং সম্পাদক পদ পেতে আরো অন্তত ১০ জন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সভাপতি পদ পেতে যাঁরা আগ্রহী, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন মহানগর যুবলীগের বর্তমান যুগ্ম সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনি, সহসভাপতি মোখলছুের রহমান, আমিনুর রহমান খান রুবেলসহ আরো দু-তিনজন। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে যাঁদের নাম শোনা যাচ্ছে, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল শেখ, যুগ্ম সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনির, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুল মোমিন, সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নাহিদ আক্তার নাহানসহ আরো পাঁচ থেকে সাতজনের নাম।

মহানগর যুবলীগের অর্থ সম্পাদক সৈয়দ জাফর মতিন রাজিব বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে সম্মেলন না হওয়ায় নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বাড়ছে। আমরা চাই দ্রুত সম্মেলন হোক।’

মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল শেখ বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে সম্মেলন না হওয়ায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা অনেকটা হতাশ হয়ে পড়েছেন। নতুন নেতৃত্ব পেলে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা আবারও চাঙ্গা হবেন।’

মহানগর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনি বলেন, ‘নতুন কমিটি হলে সংগঠনকে ঢেলে সাজানো যাবে।’

রাজশাহী মহানগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী বলেন, ‘সম্মেলন হওয়াটা দরকার। আমরাও চাইছি সম্মেলন করে নতুনদের হাতে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে। কিন্তু কেন্দ্র থেকে কোনো সিদ্ধান্ত না আসায় সেটি করতে পারছি না।’



সাতদিনের সেরা