kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

গণপরিবহন খুলে দেওয়া ও ত্রাণের দাবি শ্রমিকদের

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গণপরিবহন খুলে দেওয়া ও ত্রাণের দাবি শ্রমিকদের

স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালু এবং শ্রমিকদের মধ্যে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিতরণের দাবিতে গতকাল সিলেটে পরিবহন শ্রমিকদের বিক্ষোভ। ছবি : কালের কণ্ঠ

গণপরিবহন খুলে দেওয়া এবং কর্মহীন অসহায় শ্রমিক পরিবারের জন্য ১০ টাকা কেজি দরে চালের ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন পরিবহন শ্রমিকরা। কোথাও কোথাও ত্রাণের দাবিতেও বিক্ষোভ হয়েছে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে বিস্তারিত :  

চট্টগ্রাম : স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুই আসনে একজন যাত্রী পরিবহন করার নিয়মে অবিলম্বে গণপরিবহন চালু করার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির নেতারা। গতকাল সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে মানববন্ধন করে তাঁরা এই দাবি জানান। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বেকার সড়ক পরিবহন শ্রমিকদের আর্থিক অনুদান প্রদান, ওএমএস চাল কেজিপ্রতি ১০ টাকা দরে পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে সরবরাহ করারও দাবি জানানো হয়।

সংগঠনের চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ মুছার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন পূর্বাঞ্চল (চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ) কমিটির সভাপতি মৃণাল চৌধুরী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি রবিউল মাওলা, সাধারণ সম্পাদক অলি আহামদ, প্রচার সম্পাদক হাজী আবদুস ছবুর, হারুনুর রশিদ, আবু বক্কর ছিদ্দিকী, আবুল কাশেম, জাহেদ হোসেন, মো. শফি প্রমুখ।

সিলেট : একই দাবিতে সিলেটেও বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জেলা বাস-মিনিবাস-কোচ-মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়ন। মিছিলটি দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশিদ চত্ব্বর হয়ে কিনব্রিজ এলাকা ঘুরে কদমতলী বাস টার্মিনালে গিয়ে শেষ হয়। পরে টার্মিনালে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘বিমান চলাচল শুরু হয়েছে। প্রাইভেট গাড়ি চলছে। অথচ লকডাউনের অজুহাতে শুধু গণপরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে দেশের লাখ লাখ শ্রমিক রমজান মাসে না খেয়ে আছে। এই অমানবিক অবস্থা থেকে শ্রমিকদের মুক্তি দিতে অবিলম্বে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালু করতে হবে।’

যশোর : যশোরে সংবাদ সম্মেলনে জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা মিঠু বলেন, ‘সরকার আগামী ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে। লকডাউনের মধ্যে গণপরিবহন বাদে অন্য শ্রমিকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে কর্মের সুযোগ দিয়েছে। এ অবস্থায় আমরা পরিবহন শ্রমিকরা করোনা মহামারিতে মরব না, আমরা না খেয়ে মারা যাব।’

সংগঠনের পুরনো বাস টার্মিনাল কার্যালয়ে গতকাল যশোর জেলায় অবস্থিত পরিবহন শ্রমিক সংগঠনগুলোর আয়োজনে এ যৌথ সংবাদ সম্মেলন হয়। এতে যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টুসহ জেলার পরিবহন শ্রমিক সংগঠনগুলোর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সাতক্ষীরা : ত্রাণের দাবিতে গতকাল সকাল ১১টার দিকে সাতক্ষীরা বাস টার্মিনালসংলগ্ন সাতক্ষীরা-যশোর মহাসড়কে মানববন্ধন করেন জেলা বাস মিনিবাস শ্রমিকরা। বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি শেখ রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন শ্রমিক নেতা শেখ মাখছুুর রহমান, মীর মনিরুজ্জামান মনি, আক্তারুজ্জামান মহব্বত, জুলফিকার হোসেন সবুজ, সঞ্জয় দাশ, সনাতন শীল প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, করোনায় সরকার ঘোষিত টানা ১৭ দিনের লকডাউনে বাস মিনিবাস বন্ধ থাকার কারণে সাতক্ষীরার তিন হাজার শ্রমিকের পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। এখন পর্যন্ত তাদের পাশে কেউ সহায়তার হাত বাড়ায়নি।



সাতদিনের সেরা