kalerkantho

বুধবার । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৯ মে ২০২১। ৬ শাওয়াল ১৪৪

ফটকে তালা, প্রাচীর খোলা

ইবিতে অহরহ হচ্ছে চুরি-ছিনতাই

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা   

২২ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনার কারণে অনেক দিন ধরেই ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) বন্ধ আছে। ফলে ক্যাম্পাসে ঢোকার ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ আরোপ করেছে কর্তৃপক্ষ। এর পরিপ্রেক্ষিতে মূল গেটে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু বেশ কয়েক বছর ধরে ক্যাম্পাসের সীমানাপ্রাচীরের বেশ কয়েকটি স্থান ভাঙা পড়ে আছে। কোথাও কোথাও আবার প্রাচীরের নিচে মাটি না থাকায় ফাঁকা হয়ে আছে। ফলে বিনা বাধায় যে কেউ ক্যাম্পাসে ঢুকতে পারছে।

একই চিত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতেও। হলগুলোর গেটে সব সময় তালা ঝুললেও প্রাচীরগুলো থাকছে অরক্ষিত। কিন্তু কর্তৃপক্ষের সেদিকে নজর নেই বলে অভিযোগ। ফলে বন্ধ ক্যাম্পাসে একের পর এক চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। এই অবস্থায় হলে রেখে যাওয়া নিজেদের মূল্যবান সামগ্রী নিয়ে আশঙ্কায় আছেন শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢোকার জন্য মোট পাঁচটি গেট আছে। কিন্তু শুধু মূল গেটেই নিরাপত্তাকর্মীরা থাকেন। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু হল ও লালন শাহ হলের পকেট গেট, থানা গেট ও ইবি ল্যাবরেটরি স্কুল গেটে নেই তেমন নিরাপত্তা ব্যবস্থা। গেটগুলো দিয়ে যেকোনো সময় যে কেউ ঢুকতে ও বের হতে পারে। তার ওপর বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম দিকে অবস্থিত লেকঘেঁষে উত্তর-পশ্চিমের প্রাচীর ও লালন শাহ হলের পকেট গেটের উত্তর পাশের প্রাচীরের অনেকটা জায়গা দীর্ঘদিন ধরে ভাঙা। দেশরত্ন শেখ হাসিনা হল ও লালন শাহ হলের দক্ষিণ পাশে প্রাচীরের নিচ দিয়ে ফাঁকা আছে। এর বাইরেও প্রাচীরের আরো কয়েকটি স্থানে ভাঙা ও ফাঁকা আছে।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, ‘নিরাপত্তার বিষয়ে প্রক্টরিয়াল টিম ও আনসার টিমকে সতর্ক করা হয়েছে। ক্যাম্পাস স্বাভাবিক হলে প্রাচীরের সমস্যাগুলো নিয়ে কাজ করা হবে।’



সাতদিনের সেরা