kalerkantho

সোমবার । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৭ মে ২০২১। ০৪ শাওয়াল ১৪৪

সংস্কারহীন রেলপথই কাল

রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলীয় জোনের সিলেট সেকশনে তেলবাহী ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলীয় জোনের সিলেট সেকশনে বিগত সময়ে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে জ্বালানি তেলবাহী ট্রেন। আর এসব দুর্ঘটনার জন্য শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ ও শ্রীমঙ্গল-রশিদপুর সেকশনের সংস্কারহীন ১২ কিলোমিটার রেলপথসহ পুরনো সেতু-কালভার্ট, অপর্যাপ্ত পাথর ও পাহাড়ি ঝুঁকিপূর্ণ পথ দায়ী বলে জানা গেছে। গত ১৫ মার্চ তিন সদস্যের কমিটির প্রধান রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (রেলপথ) মহিউদ্দিন আরিফের জমা দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনে এসব কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে।

রেল বিভাগের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পূর্বাঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (রেলপথ) মহিউদ্দিন আরিফের দাখিল করা প্রতিবেদনে সিলেট সেকশনের শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ ও শ্রীমঙ্গল-রশিদপুর সেকশন সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়, সিলেট রুটে পুরনো সেতু-কালভার্ট, পুরনো ইঞ্জিন, অপর্যাপ্ত পাথর ছাড়াও পাহাড়ি সংস্কারহীন রেলপথটি ট্রেন চলাচলের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। রেলপথের স্লিপার পুরনো, উঁচু-নিচু ও অতিরিক্ত বাঁকের কারণে এ অংশে ভারী তেলবাহী ট্রেনগুলো বেশি দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে। এর মধ্যে তদন্ত কমিটি সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সেকশনকে। এ সেকশনের মধ্যবর্তী দূরত্ব ১২.৭ কিলোমিটার। লাউয়াছড়া বনের পাহাড়ি টিলা ছাড়াও এ অংশের উঁচু-নিচু ঢাল স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি হওয়ায় ভারী ট্রেনগুলোর ক্ষেত্রে আপ-ডাউনের সময় নিয়ন্ত্রণ ঠিক রাখতে পারে না চালক। উঁচু-নিচু ঢাল ও অতিরিক্ত বাঁক ছাড়াও বর্ষাকালে এ পথে পাহাড়ি টিলার মাটি এসে জমে। বর্ষা মৌসুমে গাছের ডালপালা পড়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে রেলপথটি। প্রতিবেদনে উঁচু-নিচু ঢাল ও বাঁক যৌক্তিক পর্যায়ে আনার সুপারিশ করা হয়েছে বলে কমিটির এক সদস্য সাংবাদিকদের জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিলেট সেকশনের এক স্টেশনমাস্টার জানান, সিলেট সেকশনের রেলপথ খুবই পুরনো। প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে ট্রেন চলাচল করছে। তবে করোনার কারণে বর্তমানে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তিনি আরো জানান, সিলেট সেকশনে গত ছয় মাসে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে সাতটি ট্রেন। এতে সরকারের কয়েক কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। এর পরই এসব দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত কমিটি করে দেয় রেল কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘সিলেট রুটে বারবার ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেয়েছি। সমস্যাগুলো মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে।

আর ঝুঁকিপূর্ণ রেলপথ সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হবে।’