kalerkantho

রবিবার। ২৮ চৈত্র ১৪২৭। ১১ এপ্রিল ২০২১। ২৭ শাবান ১৪৪২

কলসি কাঁখে জীবন চলে

গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি   

৮ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরিশালের গৌরনদীর চরগাধাতলী গ্রামের সবিতা রানী হালদার (৮১) নামের এক বৃদ্ধা ৪৯ বছর ধরে পানি বেচে জীবিকা নির্বাহ করছেন। একই গ্রামের মৃত রাধাকান্ত হালদারের স্ত্রী তিনি। গৌরনদী বন্দরের বিভিন্ন দোকান ও হোটেলে কলসে করে খাবার পানি বিক্রি করেন সবিতা রানী। তাঁর স্বামী মারা গেছেন অনেক আগে। তাঁদের তিন মেয়ে ও দুই ছেলে। মেজো মেয়েটা বিধবা হওয়ায় তাঁকেও দেখতে হচ্ছে সবিতা রানীর। ছেলেরা বিয়ে করে অন্যত্র থাকেন। বৃদ্ধা সবিতার দুর্গতি দেখে বন্দরের এক ব্যবসায়ী পরিত্যক্ত একটি ঝুপড়িতে আশ্রয় দিয়েছেন। সেখানেই থাকছেন মা-মেয়ে।

স্থানীয় লোকজন জানান, সবিতা রানী পানির কলসে ভর করেই বেঁচে আছেন। জীবনের শেষ মুহূর্তে এসেও কলস ছাড়তে পারেননি। সরকারি সুবিধা বলতে বয়স্ক ভাতার একটি কার্ড পেয়েছেন। কোনোমতে খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছেন সবিতা।

গৌরনদী বন্দরের ব্যবসায়ী হাকিম হাওলাদার, রিপন, আজিজুল, কানাই ঘোষ, গৌতম দেসহ কয়েকজন জানান, এক কলস পানির বিনিময়ে পাঁচ টাকা করে নেন সবিতা রানী। এই আয় দিয়ে সংসার চলে তাঁর।

সবিতা রানী বলেন, ‘আমাকে দেখার কেউ নেই। ছেলেরা থেকেও নেই। শেষ বয়সেও কলসে পানি টানতে হয়। এই বন্দরে আমি পাঁচ পয়সায় প্রতি কলস পানি টেনেছি। এখন কলসপ্রতি পাই পাঁচ টাকা। কলসে পানি টেনেই সংসার চলে। এটাই আমার জীবন, এখানেই হয়তো শেষ হবে।’

মন্তব্য