kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

খনন করা খালের ওপর আ. লীগ নেতার রাস্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খনন করা খালের ওপর আ. লীগ নেতার রাস্তা

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার গঙ্গাবর্দী গ্রামে প্রবহমান খাল ভরাটের মাধ্যমে নির্মাণ করা হচ্ছে রাস্তা। ছবি : কালের কণ্ঠ

মাদারীপুরের রাজৈরে দুই বছর আগে খনন করা সরকারি খাল ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ করেছেন আওয়ামী লীগের এক প্রভাবশালী নেতা। নিজের স্বার্থসিদ্ধির জন্য এই কাজ করেছেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেওয়ায় জেলা প্রশাসকের আশ্বাসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। শুধু এটিই নয়, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে খাল দখল করে নির্মাণ করা হয়েছে বসতবাড়ি, বাজার কিংবা অফিস। উপজেলার খালিয়া ইউনিয়নের বৈলগ্রামে সরকারি খাল দখল করে বসতবাড়ি নির্মাণ করেছেন স্থানীয় সঞ্জয় বিশ্বাস। একই খালের পানিপ্রবাহ বন্ধ করে রাস্তা নির্মাণ করেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ী নিরোদ দত্ত। টেকেরহাট বন্দরসংলগ্ন শিমুলতলায় খাল দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে একটি এনজিও অফিস। পাইকপাড়া ইউনিয়নের লক্ষ্মীর বাজারে খালের মধ্যে দোকানপাট নির্মাণ করে অনেকে ব্যবসা করছেন। সব ক্ষেত্রেই নীরব ভূমিকা পালন করছে প্রশাসন।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের গঙ্গাবর্দী গ্রামে প্রবহমান খালের ওপরে মাটি ভরাট করে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। আর এই কাজটি করেছেন বাজিতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল হালিম ফকির। তিনি প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় স্থানীয় লোকজন এ কাজের বিরুদ্ধে কোনো প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সাত লাখ ৭২ হাজার টাকা ব্যয়ে খালটি খনন করে কুমার নদের সঙ্গে পানিপ্রবাহের ব্যবস্থা করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এবার সেই খালটিই ভরাট করে পানি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এতে আগামী বর্ষায় জলাবদ্ধতাসহ নানা ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হবে। এই রাস্তা নির্মাণ করতে গিয়ে পাশের কয়েকটি বাড়ির পাশ থেকে মাটি কেটে নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে হালিম ফকিরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি খাল বন্ধ করে রাস্তা নির্মাণ করিনি।’ এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পার্থপ্রতীম সাহা বলেন, ‘খাল খননের বিষয়টি আমাদের দায়িত্বে। আর খাল রক্ষার দায়িত্ব প্রশাসনের। তবে বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে আমরা আলোচনা করব।’ মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন খাল ভরাটের স্থান পরিদর্শন করে বলেন, ‘আগে আমরা এখানে একটি স্লুইস গেটের ব্যবস্থা করব। তারপর রাস্তাটি অপসারণ করা হবে।’

মন্তব্য