kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

বন কর্মকর্তার নির্দেশে গাছ কাটার ধুম

গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি   

৪ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরিশালের গৌরনদীতে খাল পুনঃখননের মাটির চাপায় নষ্ট হওয়ার অজুহাত দেখিয়ে ভূরঘাটা-সমরসিংহ বেড়িবাঁধের সামাজিক বনায়নের সহস্রাধিক সরকারি গাছ কাটা হয়েছে। গৌরনদী বন কর্মকর্তার নির্দেশে সাবেক ইউপি সদস্য কামাল ফকিরের নেতৃত্বে গাছ কাটার উৎসব চলছে। কাটা গাছের একটি অংশ বিক্রিও করেছেন তাঁরা। একইসঙ্গে ঘটনা আড়াল করতে আমানতগঞ্জ-শশিকর খাল পুনঃখননের মাটি দিয়ে গাছ কাটার চিহ্ন ঢেকে দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১০ সালের জানুয়ারি মাসে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও উপজেলা বন বিভাগের সঙ্গে স্থানীয় কয়েকটি সমিতির সামাজিক বনায়নের চুক্তি হয়। সে অনুযায়ী বন বিভাগের অর্থায়নে আলাদা তিনটি সমিতির উদ্যোগে ১৪ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের দুই পাশে বিভিন্ন প্রজাতির ১৪ হাজার বনজ গাছের চারা রোপণ করা হয়। এ বিষয়ে কামাল ফকির বলেন, ‘আমানতগঞ্জ-শশিকর খাল পুনঃখননের মাটি উঁচু করে রাখার ফলে এক কিলোমিটার বেড়িবাঁধের গাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেগুলোই শ্রমিক দিয়ে কেটে রাখা হয়েছে। আর ডালপালা থেকে পাওয়া ৬০০ মণ লাকড়ি বিক্রি করে শ্রমিকদের মজুরি দেওয়া হয়েছে।’

গৌরনদী বন বিভাগের রেঞ্জ অফিসার সেলিম আহম্মেদ বলেন, ‘খাল খননের মাটি রাখার কারণে চাপা পড়ে কিছু গাছ নষ্ট হয়েছে। সেগুলোই সুবিধাভোগী সদস্যরা কেটে রেখেছে।’

গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপিন চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ‘খাল পুনঃখননের স্বার্থে সরকারি বিধি মোতাবেক বেড়িবাঁধের সামাজিক বনায়ন প্রকল্পের গাছ অপসারণ করা যেতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে দরপত্র ছাড়া গাছ কাটার কোনো সুযোগ নেই।’

মন্তব্য