kalerkantho

সোমবার । ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ৮ মার্চ ২০২১। ২৩ রজব ১৪৪২

কাজ নেই, টাকা ছাড়

সুনামগঞ্জের হাওর রক্ষা বাঁধে কাজ শুরু হয়নি
১২৭ কোটি টাকার ২৫ শতাংশ প্রতিটি উপজেলায় পাঠানো হয়েছে

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

২২ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুনামগঞ্জের হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে ৭৮৭ প্রকল্পের একটিতেও কাজ শুরু হয়নি। কবে কাজ শুরু হবে, তা জানেন না কৃষকরা। অথচ নীতিমালা অনুযায়ী এরই মধ্যে বরাদ্দ ১২৭ কোটি টাকার মধ্যে ২৫ শতাংশ (প্রায় ৩২ কোটি) টাকা গত ১৮ জানুয়ারি প্রতিটি উপজেলায় পাঠানো হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের কাবিটা নীতিমালা অনুযায়ী কাজের আগে ২৫ শতাংশ অর্থ অগ্রিম দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গত ১৮ জানুয়ারি জেলা কমিটি উপজেলা কমিটির হিসাবে ২৫ শতাংশ অর্থ পাঠিয়ে দিয়েছে।

দেখার হাওরপারের কৃষক আব্দুল আলিম বলেন, ‘আমরার আউরোর হকল জমিনো রুয়া রওয়া শেষ অইগেছে। কিন্তু অখনো বান্দের খবর নাই। খারা খাম পাইছে, কিলা খরব আমরা কুন্তা জানি না। বান্দের খাম পাওয়ার লাগি কিছু মানুষ ইলা সময়ে পাগল অইযায়। টাকা দিয়া বান্দর খামো ডুকতো চায়। অত লাভ ইতাত।’

একই হাওরের জানিগাঁওয়ের কৃষক স্বপন মিয়া বলেন, ‘অখনো বান্দ বান্দা অইছে না। অখন বান্দ বান্দা অইলে মাটি বইলনে। আমরা নিচিন্ত্মা থাকলামনে। এখন আল্লার উপর ভরসা কইরা রইছি। কোনসময়ে যে পাইন্যে নিব ঠিক নাই।’

হাওর বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক বিজন সেনরায় বলেন, ‘অপ্রয়োজনীয় প্রকল্পের কারণে এবার হাওরের পানি বিলম্বে নামছে। তার পরও এবার প্রকল্প বাড়ানো হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায়ই প্রকল্প গ্রহণে অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে। কৃষকরা লিখিত অভিযোগ করেছেন। আমরাও এর প্রতিবাদে কর্মসূচি পালন করেছি। শুনেছি বাঁধের অর্থ ছাড় হয়েছে, কিন্তু কোথাও কাজ শুরুর খবর পাইনি আমরা।’

পাউবো নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সবিবুর রহমান বলেন, ‘১৮ জানুয়ারি উপজেলা কমিটির অ্যাকাউন্টে ১২৭ কোটি টাকা প্রাথমিক বরাদ্দের ২৫ শতাংশ অর্থ আগাম ছাড় করা হয়েছে। পিআইসি অনুমোদনের পর কাজ শুরুর তৎপরতা শুরু হয়েছে। আশা করি, ২৮ জানুয়ারির মধ্যেই হাওরের বাঁধের কাজ শেষ করতে পারব। প্রকল্প গ্রহণ, অনুমোদন ও প্রাক্কলনে কোনো অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়নি।’

উল্লেখ্য, গত বুধবার কালের কণ্ঠ’র শেষ পৃষ্ঠায় হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নিয়ে ‘পাল্লা দিয়ে বাড়ছে প্রকল্প, শুরু হচ্ছে না কাজ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা