kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭। ২ মার্চ ২০২১। ১৭ রজব ১৪৪২

হলফে কাউন্সিলর প্রচারে মেয়র

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি   

২০ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হলফে কাউন্সিলর প্রচারে মেয়র

কবি আবুল হোসেন মিয়া লিখেছেন—‘একটুখানি ভুলের তরে অনেক বিপদ ঘটে, ভুল করেছেন যারা সবাই ভুক্তভোগী বটে’। কবির এই সত্য বাক্যের উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন জামালপুরের সরিষাবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে নারিকেলগাছ প্রতীকের মেয়র পদপ্রার্থী ফজলুল হক খান। মেয়র পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও হলফনামায় ঘোষণা দিয়েছেন ৫ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। বিষয়টি নিয়ে সরিষাবাড়ী পৌরসভার নির্বাচনের মাঠে বেশ তোলপাড় শুরু হয়েছে।

বাছাইয়ে টিকে যাওয়ার পর বিষয়টি প্রকাশ হওয়ায় এ নিয়ে জেলা রিটার্নিং অফিসারও বেশ বিব্রত অবস্থায় পড়েছেন। তবে এ নিয়ে কেউ আইনি পদক্ষেপ নিলে ওই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হতে পারে বলে জানিয়েছেন জেলা রিটার্নিং অফিসার।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তৃতীয় ধাপে ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সরিষাবাড়ী পৌরসভার নির্বাচন। গত ৫ জানুয়ারি সর্বশেষ বাছাইয়ে মেয়র পদে তিনজন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জন ও সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৪৩ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন জেলা রিটার্নিং অফিসার। এরই মধ্যে প্রার্থীরা প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে নির্বাচনী প্রচার ও ভোট প্রার্থনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন।

এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মনির উদ্দিন, বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক ফয়জুল কবির তালুকদার শাহীন ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে পৌর বিএনপির সহসভাপতি ফজলুল হক খান নারিকেলগাছ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

কালের কণ্ঠ’র অনুসন্ধানে জানা যায়, নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীর হলফনামার প্রথম পাতায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কথা লেখা রয়েছে। কিন্তু নারিকেলগাছ প্রতীকের মেয়র পদপ্রার্থী ফজলুল হক খান হলফনামায় কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে ইচ্ছুক বলে ঘোষণা করেছেন।

এ ব্যাপারে নারিকেলগাছ প্রতীকের স্বতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী ফজলুল হক বলেন, ‘ঘটনাটি ভুলবশত হয়েছে। তবে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন সেটা সংশোধন করে দিয়েছি।’ নৌকা প্রতীকের মেয়র পদপ্রার্থী মনির উদ্দিন বলেন, ‘জেলা নির্বাচন কর্মকর্তারা যাছাই-বাছাই না করে কিভাবে তাঁকে মেয়র পদে বৈধ ঘোষণা করল, তা ভেবে বিস্মিত হচ্ছি। এখন তাঁর প্রার্থিতা বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।’

সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছানোয়ার হোসেন বাদশা বলেন, ‘হলফনামায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভুলের বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। এ ব্যাপারে দলীয়ভাবে কী করা যায় তা আমরা খতিয়ে দেখছি।’

জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থীদের দেওয়া হলফনামায় কিছু ছোটখাটো ভুল ছিল। তবে তা আমরা সংশোধন করে দিয়েছি। কিন্তু স্বতন্ত্র মেয়র পদপ্রার্থী ফজলুল হক খানের ভুলটি হলফনামার মূল পাতায় সংশোধন হয়েছে কি না তা দেখতে হবে। এ কারণে তাঁর প্রার্থিতা থাকবে কি না সে ব্যাপারেও যে কেউ আদালতে যেতে পারেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা