kalerkantho

বুধবার । ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭। ৩ মার্চ ২০২১। ১৮ রজব ১৪৪২

ঘিওর

গ্রাহকদের কোটি টাকা নিয়ে উধাও

সাব্বিরুল ইসলাম সাবু, মানিকগঞ্জ   

১৭ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গ্রাহকদের কোটি টাকা নিয়ে উধাও

মানিকগঞ্জের ঘিওরে ‘ব্যবসায়ী সঞ্চয় সমিতি বেক্রিমকো গ্রুপ’ নামের একটি কথিত বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) কর্মকর্তারা গ্রাহকদের প্রায় এক কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন প্রায় ২০০ গ্রাহক।

ভুক্তভোগীদের সূত্রে জানা গেছে, ‘সততা, সচ্ছলতা ও সফলতা’ এই স্লোগান নিয়ে মাত্র এক মাস আগে উপজেলার বরঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অফিস ভাড়া নেয় প্রতিষ্ঠানটি। পরে কর্মীদের দিয়ে প্রচারণা চালায়, প্রতি ১০ হাজার টাকা জামানত রাখলে সহজ শর্তে এক লাখ টাকা ঋণ দেওয়া হবে। ঋণ পাওয়ার আশায় কয়েক শ গ্রামবাসী ১০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত জামানত হিসেবে জমা দেন। কিন্তু ১৫ দিন না যেতেই অফিসে তালা ঝুলিয়ে ব্যবসা গুটিয়ে হাওয়া হয়ে গেছে প্রতিষ্ঠানের লোকজন। একই সঙ্গে হাতিয়ে নিয়েছে গ্রাহকদের প্রায় এক কোটি টাকা।

পুলিশ বলছে, প্রতিষ্ঠানটির মালিক প্রতারক। গ্রামের সহজ-সরল মানুষকে ভুল বুঝিয়ে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পালিয়ে থাকলেও তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

জাহাঙ্গীর আলম নামের এক ব্যক্তি এই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক পরিচয় দিয়ে বানিয়াজুরির বাড়ির মালিক সালাম মিয়ার বাসা ভাড়া নেন। বাড়ির মালিক সালাম মিয়া জানান, জাহাঙ্গীর আলমের পোশাক-আশাক ও কথাবার্তার ধরন দেখে খুবই ভদ্রলোক বলে মনে হয়েছে। তাঁর কথায় বিশ্বাস করে মাসিক আট হাজার টাকায় বাড়িটি ভাড়া দেন। বিশ্বাসের কারণেই জাহাঙ্গীরের ঠিকানা জানতে চাওয়া হয়নি। না জানিয়ে ঘরে তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পরই বুঝতে পারেন জাহাঙ্গীর একজন প্রতারক। এখন অনেক ভুক্তভোগীই টাকা ফেরত পাওয়ার আশায় ভিড় করছেন।

বানিয়াজুরি বাসস্ট্যান্ডের ব্যবসায়ী প্রদীপ সরকার ৩০ হাজার টাকা জামানত দিয়ে তিন লাখ টাকা ঋণ পাওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। ছোট বৈন্যা গ্রামের ভ্যানচালক দেলোয়ার হোসেন ধার করে জামানত রেখেছিলেন ১০ হাজার টাকা।

সরেজমিনে গত শুক্রবার ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় সুবল দাস, শিউলি আক্তারসহ অন্তত ২০ জন ভুক্তভোগী ওই অফিসের সামনে বসে কান্নাকাটি করছেন। খবর পেয়ে ঘিওর থানার ওসি রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বিপ্লব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। আশ্বাস দিয়ে তিনি বলেন, ‘আশা করি, শিগগিরই মূল প্রতারককে আইনের আওতায় আনতে পারব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা