kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ মাঘ ১৪২৭। ২৮ জানুয়ারি ২০২১। ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বিদ্রোহী প্রার্থীদের নাম প্রস্তাব

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি   

৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিদ্রোহী প্রার্থীদের নাম প্রস্তাব

খাগড়াছড়ি ও রামগড় পৌরসভার আসন্ন নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য ছয় মেয়র প্রার্থীর নাম ঠিক করেছে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগ। চূড়ান্ত মনোনয়নের জন্য এই তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। এই তালিকায় গত নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া নেতাদের নামও রয়েছে। এ ঘটনায় সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা হলো আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে আগের কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী দলের মনোনয়ন পাবেন না।  

আগামী ১৬ জানুয়ারি দ্বিতীয় দফায় খাগড়াছড়ি এবং তৃতীয় দফায় রামগড় পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল শনিবার সকালে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার সভাপতিত্বে বর্ধিতসভায় সহসভাপতি কংজরী চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরীসহ উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন। খাগড়াছড়ি ও রামগড় পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হতে আগ্রহীরাও সভায় অংশ নেন।

সভায় খাগড়াছড়ি পৌর নির্বাচনে মোট সাতজন মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ দেখান। তাঁরা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন কবির বাবু, ক্যজরী মারমা, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ রায় দাশ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাবেদ হোসেন ও বর্তমান মেয়র রফিকুল আলম।

সভায় অংশ নেওয়া নেতারা জানিয়েছেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা ও জ্যেষ্ঠ নেতারাই তালিকা ছোট করে তিনজনের নাম ঠিক করে ঢাকায় পাঠাচ্ছেন। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, খাগড়াছড়ি পৌরসভার জন্য যে তিনজনের নাম পাঠানো হচ্ছে তাঁরা হলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক পার্থ ত্রিপুরা জুয়েল ও বর্তমান মেয়র রফিকুল আলম। আর রামগড় পৌরসভায় যে তিনজনের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে তাঁরা হলেন রামগড় পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল আলম কামাল, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ও বর্তমান মেয়র কাজী শাজাহান রিপন। ঢাকায় মনোনয়ন বোর্ড চূড়ান্ত একজনের নাম ঘোষণা করবে।

তবে খাগড়াছড়িতে রফিকুল আলম এবং রামগড়ে কাজী শাজাহান রিপনকে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী তালিকায় যুক্ত করায় সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। কারণ রফিকুল আলম খাগড়াছড়ি পৌরসভার গত দুই নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন।

এ বিষয়ে খাগড়াছড়ি পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাবেদ হোসেন বলেন, ‘আওয়ামী লীগের ক্ষতি করার পরও তাঁর (রফিকুল) নাম কেন্দ্রে প্রস্তাব আকারে পাঠানো ত্যাগী নেতাকর্মীদের কুঠারাঘাত করার শামিল। আমি বিতর্কিত রফিকুল আলমের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানাই।’

অন্যদিকে কাজী শাজাহান রিপন রামগড়ের গত পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিপক্ষে গিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হন। এ নিয়ে রামগড় আওয়ামী লীগে কোন্দল সৃষ্টি হয়।

রামগড় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তফা হোসেন বলেন, ‘কাজী শাজাহান প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা হারিয়েছেন। তিনি আগের নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন। তাঁকে প্রার্থী করা হলে দল কিছুতেই মেনে নেবে না।’

এই বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী বলেন, ‘সম্ভাব্য প্রার্থীদের জীবনবৃত্তান্ত এবং বিগত দিনের কার্যকলাপসহ প্রস্তাব পাঠানো হচ্ছে। অতীতে কার কী কীর্তি; সবই জননেত্রী শেখ হাসিনা জানেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমি নিজেও মেয়র পদপ্রার্থী। তবে দল যাঁকে নমিনেশন দেবেন তাঁর পক্ষে সবাই মিলে কাজ করতে হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা