kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৭ মাঘ ১৪২৭। ২১ জানুয়ারি ২০২১। ৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

নৌকা-বিদ্রোহী মুখোমুখি

বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচন

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি   

৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আগামী ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিন প্রার্থী। এর মধ্যে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভিক্টোরিয়া পারভিন সাথী। অন্যদিকে আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ নেতা ও জহুরপুর ইউনিয়নের দুইবারের চেয়ারম্যান দিলু পাটোয়ারী। একই সঙ্গে মাঠে জোর প্রচারে আছেন বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক শামছুর রহমান।

ঘটনার সূত্রপাত গত ১৭ নভেম্বর নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের পর। ওই দিন রাত ৯টার দিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী নারিকেলবাড়িয়া থেকে ইন্দ্রা বাজারে এসে কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন। এ সময় নৌকা প্রতীকের সমর্থক তরিকুল ইসলামের সঙ্গে দিলুর তর্ক হয়। একপর্যায়ে নৌকার সমর্থকরা দিলু পাটোয়ারীকে আটকে রাখার চেষ্টা করেন। তখন দিলুর সমর্থকরা তাঁকে উদ্ধার করতে এলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় কমবেশি ১৫ জন আহত হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত ১৮ নভেম্বর স্বতন্ত্র প্রার্থী দিলু পাটোয়ারীসহ ১৭ জনের নামে মামলা করেন নৌকা প্রতীকের কর্মী ও ইন্দ্রা গ্রামের আবু জাফর মোল্যার ছেলে জাকির হোসেন। পরদিন একই ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান, পৌর কাউন্সিলরসহ ২৫ জনের নামে বাঘারপাড়া থানায় পাল্টা মামলা করেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী। দুটি মামলায় গ্রেপ্তারও হন নৌকা প্রতীকের তিন ও আনারস প্রতীকের চারকর্মী।

এরপর গত ২৯ নভেম্বর বাসুয়াড়ি ইউনিয়নের আলাদিপুর বাজারে নৌকা ও আনারস প্রতীকের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের দুজন আহত হয়। এ ঘটনায় ৩০ নভেম্বর আলাদা দুটি মামলা হয়। নৌকা প্রতীকের ১৯ জন ও আনারসের ৩৭ জন কর্মীকে আসামি করে মামলা দুটি করেন যথাক্রমে নৌকা প্রতীকের কর্মী ওলিয়ার রহমান ও আনারস প্রতীকের কর্মী স্থানীয় ইউপি সদস্য জাহিদ সরদার। দুই ঘটনায় করা মামলায় আনারস প্রতীকের ৩০ কর্মীকে আটক করা হলেও নৌকা প্রতীকের মাত্র তিন কর্মীকে আটক করা হয়। এতে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

এ ব্যাপারে আনারস প্রতীকের প্রার্থী দিলু পাটোয়ারী বলেন, ‘কিছু পুলিশ কর্মকর্তা আমার সঙ্গে বিমাতাসুলভ আচরণ করছেন।’

এদিকে এ ব্যাপারে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ভিক্টোরিয়া পারভিন সাথীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোন ধরেননি তিনি। জানতে চাইলে বাঘারপাড়া থানার ওসি সৈয়দ আর মামুন বলেন, ‘নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে আমরা নিরপেক্ষভাবে কাজ করছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা