kalerkantho

সোমবার। ৪ মাঘ ১৪২৭। ১৮ জানুয়ারি ২০২১। ৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বাগমারায় শিশুর বয়স বাড়িয়ে কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২৭ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহীর বাগমারায় যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলে এক শিশুর বয়স বাড়িয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। ওই শিশু বাগমারা ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। সে জেএসসি ও এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছে। জন্মসনদ অনুযায়ী তার বয়স ১৬ বছর।

২০১৩ সালের শিশু আইন অনুযায়ী, ১৮ বছর বয়সের নিচে যে কেউ শিশু হিসেবে বিবেচিত হবে। তাকে কোনো অপরাধেই কারাগারে পাঠানো যাবে না।

শিশুর মা রাশেদা খাতুন গত মঙ্গলবার রাজশাহী পুলিশ সুপারের কাছে একটি অভিযোগ করেন। অভিযোগের একটি কপি তিনি কালের কণ্ঠ রাজশাহী অফিসে দিয়ে গেছেন। ওই অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, ওই ছাত্রের সঙ্গে মোবাইল ফোনে এক স্কুলছাত্রীর বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। এই সম্পর্কের সূত্র ধরে তাদের মধ্যে যোগাযোগ হয়। এরই সূত্র ধরে বন্ধুকে মোবাইল ফোনে গত ১৯ অক্টোবর তার বাড়ির সামনে ডেকে নেয় মেয়েটি। সেখানে যাওয়ামাত্র মেয়ের বাবা এবং তাঁর পরিবারের লোকজন ছাত্রকে ধরে মারধর করে রক্তাক্ত ও জখম করে। এরপর প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে স্থানীয় নেতা ও থানার দালাল নামে পরিচিত আব্দুস সোবহানের মাধ্যমে বাগমারা থানা পুলিশের তুলে দেন। এরপর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ওসমান গনি ওই কিশোরের বয়স ১৯ দেখিয়ে মামলা এজাহারভুক্ত করতে সহায়তা করেন। মামলার পর ছাত্রের মোবাইল ফোনটিও কেড়ে নেন এসআই ওসমান। এরপর মামলা থেকে বাঁচাতে তার মায়ের কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা ঘুষ চান। শেষে গরিব মা তাঁর সন্তানের জন্য ধারদেনা করে তিন হাজার টাকা দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এসআই ওসমান গনি বলেন, ‘মামলার বাদী আসামির বয়স এজাহারে উল্লেখ করেছেন। এখানে আমাদের কিছু করার নেই। মামলার তদন্ত চলছে। তদন্তে বয়স কম হলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য