kalerkantho

শনিবার । ৯ মাঘ ১৪২৭। ২৩ জানুয়ারি ২০২১। ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪২

অভাবে মেয়েকে দত্তক

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি   

২৬ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুড়িগ্রামের উলিপুরে অভাবের তাড়নায় কোলের সন্তানকে দত্তক দিয়েছেন এক মা। করোনা পরিস্থিতির এ সময়ে এমন ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি জানেন না স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান কিংবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। উপজেলার করতোয়ারপাড় গ্রামে সম্প্রতি এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ২০১১ সালে উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের গোড়াইপিয়ার গ্রামের আনিছুর রহমানের সঙ্গে দলদলিয়া ইউনিয়নের করতোয়ারপাড় গ্রামের গফ্ফার আলীর মেয়ে শেফালী বেগমের বিয়ে হয়। তাঁদের সংসারে দুই মেয়ের জন্ম হয়। বিয়ের আগে থেকেই মাদকাসক্ত ছিলেন স্বামী আনিছুর। শেফালীকে প্রায়ই নির্যাতন করতেন তিনি। বছর দুই আগে স্ত্রী-সন্তানদের ফেলে চলে যান ঢাকা। আর যোগাযোগ করেননি তিনি। নিরুপায় হয়ে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন শেফালী। অভাবের কারণে সেখানেও তাঁদের অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটে। করোনা পরিস্থিতির কারণে কোনো কাজকর্মও জোটাতে পারেননি শেফালী। এদিকে ১৫ মাসের ছোট মেয়েটি ক্ষুধার তাড়নায় প্রায়ই কাঁদতে থাকত। এ পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়ে মেয়েকে দলবাড়ী গ্রামের নিঃসন্তান মো. আনিছুর রহমান দম্পতির কাছে দত্তক দেন।

অসহায় শেফালী বেগম বলেন, ‘অভাবের কারণে বাধ্য হয়ে দুই সপ্তাহ আগে ছোট মেয়েটিকে দত্তক দিয়েছি।’ দলদলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান মুন্সি বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই।’ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরে-এ-জান্নাত রুমি বলেন, ‘বিষয়টি আপনার কাছেই প্রথম শুনলাম।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা