kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

‘তোরে মাইরা ফালামু’

ডাক্তারকে অ্যাম্বুল্যান্সচালকের হুমকি

শেরপুর ও নকলা প্রতিনিধি   

৩০ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘...তোরে মাইরা গাইরা ফালামু, ফাজিল কোথাকার। বেশি বাড়াবাড়ি করলে তোরে খুন কইরা ফালামু।’ হাসপাতালে অ্যামু্বল্যান্সের ভাড়ার তালিকা টাঙিয়ে দেওয়ায় এভাবেই চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. রবিউল করিমকে গালাগাল করে হুমকি দিলেন অ্যাম্বুল্যান্সচালক রুহুল আমিন হীরা। শেরপুরের নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গতকাল সকালে এ ঘটনা ঘটে। হাসপাতালের অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

সিভিল সার্জন ডা. আবুল কাশেম মো. আনওয়ারুর রউফ জানান, এ ঘটনায় অ্যাম্বুল্যান্সচালক রুহুল আমিন হীরাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে ঘটনা তদন্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নকলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, এই হাসপাতাল থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগী পরিবহনে সরকার নির্ধারিত অ্যাম্বুল্যান্স ভাড়া এক হাজার ১০০ টাকা (প্রতি কিলোমিটার ১০ টাকা হারে ৫৫ কিলোমিটারের)। কিন্তু চালক হীরা দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা আদায় করছিলেন। বাড়তি টাকা না দিলে নানা অজুহাত দেখিয়ে রোগী পরিবহন করতেন না তিনি। এমন পরিস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার দায়িত্ব পেয়ে ডা. রবিউল করিম দুই দিন আগে অ্যাম্বুল্যান্স ভাড়ার তালিকা টাঙিয়ে দেন। এতে ক্ষিপ্ত হন চালক হীরা।

ডা. রবিউল করিম বলেন, ‘আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। সাধারণ মানুষের যাতে কষ্ট লাঘব হয়, কেউ যাতে প্রতারণার শিকার না হন, এ জন্য জনস্বার্থে আমি অ্যাম্বুল্যান্সের সরকারি ভাড়ার তালিকা টাঙিয়ে দিয়েছি।’

এ বিষয়ে অভিযুক্ত অ্যাম্বুল্যান্সচালক রুহুল আমিন হীরা বলেন, ‘আমি কিছুটা রাগ করে ডা. রবিউল করিমের সঙ্গে কথা বলেছি, এটা ঠিক। তবে তাকে কোন ধরনের হত্যার হুমকি দিইনি।’ বেশি টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ভাড়ার সঙ্গে তেলের দামের সমন্বয় না থাকায় কিছু টাকা বেশি নেওয়া হয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা