kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ১ ডিসেম্বর ২০২০। ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

কচুরিপানা ‘গিলছে’ বুড়িভদ্রাকে

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

২১ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বুড়িভদ্রা—যশোরের কেশবপুরের এই নদী কচুরিপানায় ছেয়ে গেছে। ফলে নদীর স্বাভাবিক পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। হুমকিতে পড়েছে জলজ জীববৈচিত্র্য। শুধু তা-ই নয়, কচুরিপানা জমে থাকায় নদীটি তার সৌন্দর্যও হারাচ্ছে।

জানা যায়, কেশবপুর পৌরসভা, ত্রিমোহিনী, সাতবাড়িয়া, সদর, মজিদপুর ও মঙ্গলকোট ইউনিয়নের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে বুড়িভদ্রা। এর উত্পত্তি কপোতাক্ষ নদের ত্রিমোহিনী বাজারের শ্মশানঘাটের পাশে। এখান থেকে নদীটি হরিহর নদের মঙ্গলকোটের বড়েঙ্গা জিরো পয়েন্টে গিয়ে মিশেছে। একসময় বুড়িভদ্রার স্বচ্ছ পানিতে নিজের মুখ দেখা যেত। তখন কেশবপুর ছাড়াও আশপাশের অনেক এলাকার মানুষ দল বেঁধে বিকেলে নদীটির সৌন্দর্য উপভোগ করত আসত। কিন্তু এখন যত দূর চোখ যায় শুধু কচুরিপানা। এ কারণে এলাকার মানুষের গোসল করতেও সমস্যা হচ্ছে।

এ অবস্থায় দ্রুত কচুরিপানা অপসারণের দাবি জানিয়েছেন নদীপারের মজিদপুর গ্রামের মোখলেছুর রহমান।

মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর পলাশ জানান, বুড়িভদ্রা নদীসহ কয়েকটি খালে কচুরিপানা জমে পানি দূষিত হচ্ছে। এতে নদী-খালগুলোর স্বাভাবিক পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সদর ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আলা বলেন, ‘কচুরিপানার কারণে (বুড়িভদ্রা) নদীটি তার সৌন্দর্য হারিয়ে ফেলছে।’

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মুন্সি আছাদুল্লাহ বলেন, ‘বুড়িভদ্রা নদী থেকে কচুরিপানা অপসারণের কোনো প্রকল্প নেই। স্রোতে ভেসে গিয়ে কচুরিপানা অপসারিত হলেই নদের সৌন্দর্য ফিরে আসবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা