kalerkantho

শুক্রবার । ৭ কার্তিক ১৪২৭। ২৩ অক্টোবর ২০২০। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

চিকিৎসা দিচ্ছেন পিওন গার্ড ও ঝাড়ুদার

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



চুয়াডাঙ্গার চার উপজেলার কোনো প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে ভেটেরিনারি সার্জন নেই। সদরসহ চার উপজেলার চারটি পদই শূন্য। জেলা কার্যালয়ে স্বল্প পরিসরে পশু চিকিৎসা দেওয়া হলেও সেখানে ভেটেরিনারি সার্জনের কোনো পদই নেই। ফলে অসুস্থ পশু নিয়ে প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের হাসপাতালে এলে চিকিৎসা দেন কম্পাউন্ডার, পিওন, নাইটগার্ড কিংবা ঝাড়ুদার। এতে পশুর সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন জেলার খামার মালিক ও কৃষকরা। এই সুযোগে গ্রামের অনেক হাতুড়ে চিকিৎসক পশু চিকিৎসার নামে হাতিয়ে নিচ্ছেন মোটা অঙ্কের টাকা।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার চার উপজেলার চারটি প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে চারজন ভেটেরিনারি সার্জন থাকার কথা। কিন্তু সব পদই শূন্য। কোথাও কোথাও কম্পাউন্ডার পদও শূন্য। এ অবস্থায় চারটি প্রাণিসম্পদ হাসপাতালের নিম্ন শ্রেণির কর্মচারীরা কোনো রকমে অসুস্থ পশুর চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। এতে ভুল চিকিৎসার আশঙ্কা থেকেই যায়। প্রাণিসম্পদ কার্যালয় সূত্র আরো জানায়, চুয়াডাঙ্গা সদর প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর ও দামুড়হুদা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে ১০ বছর ধরে ভেটেরিনারি সার্জনের পদ শূন্য রয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা