kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ কার্তিক ১৪২৭। ৩০ অক্টোবর ২০২০। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

তালায় সর্বহারা আতঙ্ক

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তালায় সর্বহারা আতঙ্ক

সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় সর্বহারা পার্টির পরিচয়ে গত এক সপ্তাহে অন্তত ১০ জনের কাছে ফোন করে চাঁদা চাওয়া হয়েছে। টাকা না দিলে মুঠোফোনে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

সর্বহারা পরিচয়ে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চাঁদা দাবির ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ ঘটনায় তালা থানায় তিনজন সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

জেঠুয়া গ্রামের মো. মাজেদ আলী গাজীর ছেলে কৃষ্ণকাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আছাদুল হক জানান, গত ২১ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টার দিকে একটি নম্বর থেকে তাঁকে কল করা হয়। এ সময় সর্বহারা পার্টির চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জিয়া পরিচয় দিয়ে ১০ লাখ টাকা চাওয়া হয়। দাবীকৃত টাকা বিকাশের মাধ্যমে পাঠাতে বলে বিকাশ নম্বর দেন।

টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে কত দিতে পারবেন এটা জানতে চান চেয়ারম্যান। তিনি আবারও দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাঁকে গালাগাল ও হত্যার হুমকি দিয়ে মোবাইল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। বাধ্য হয়ে তিনি বিষয়টি তাঁর সহকর্মীসহ প্রধান শিক্ষককে জানান এবং তাঁদের পরামর্শে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

ধুলাণ্ডা গ্রামের মৃত শৈলন্দ্র নাথ দাশের ছেলে ও তালা সরকারি কলেজের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রদর্শক সন্তোষ কুমার দাশ জানান, গত ২০ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬টায় এই একই নম্বর থেকে একই পরিচয় দিয়ে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে বিকাশ নম্বরে দ্রুত ২০ হাজার টাকা পাঠাতে বলেন। আর টাকা বিকাশ না করলে হত্যার হুমকি দেন। এ ঘটনায় তিনি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

বারইহাটী গ্রামের মৃত মজিদ মোড়লের ছেলে ও জেঠুয়া জাগরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. আব্দুর রব জানান, গত ২৩ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় একই নম্বর থেকে একই পরিচয় দিয়ে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়।

২৪ সেপ্টেম্বর দুপুর দেড়টায় আরেকটি নম্বর থেকে ফোন করে বলেন, ‘আমার ছেলেরা জেলে আছে। তাদের ছাড়াতে টাকা লাগবে, তুই আজকের ভেতরে বিকাশ নম্বরে দুই লাখ টাকা পাঠিয়ে দিবি।’ টাকা না দিলে তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় তিনি তালা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

মোবারাকপুর গ্রামের জিন্নাত মাস্টারের ছেলে যশোরে কর্মরত কটন ইউনিট কমকর্তা মো. হুমায়ন কবির বলেন, গত সোমবার দুপুর দেড়টায় আরেকটি নম্বর থেকে একই পরিচয়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা চাওয়া হয়। টাকা না দিলে হত্যা করে লাশ গুম করার হুমকি দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে তালা থানার উপপরিদর্শক প্রতীশ রায় জানান, তাঁরা এ ধরনের চাঁদা দাবির তিনটি অভিযোগ পেয়েছেন। সিডিআরের মাধ্যমে সর্বহারা পার্টির প্রধান পরিচয়দানকারীর অবস্থান নিশ্চিত করে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে।

তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী রাসেল গতকাল জানান, এলাকায় সর্বহারা পার্টির কোনো অস্তিত্ব নেই।

কোনো প্রতারকচক্র এই কাজ করছে বলে তাঁরা সন্দেহ করছেন। মোবাইল নম্বর ট্র্যাক করে তাঁকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

মন্তব্য