kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সংক্ষিপ্ত

বৃষ্টির পানিতে কৃষকের কান্না

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বগুড়ার ধুনট উপজেলার গোয়ালভাগ গ্রামের কৃষক মাহাম আলী ধারদেনা করে এক বিঘা জমিতে আগাম জাতের টমেটো চাষ করেছেন। প্রায় প্রতিটি গাছই সতেজ হয়ে উঠেছিল। আর কয়েক দিন পরই গাছে টমেটো ধরত। কিন্তু কয়েক দিনের বৃষ্টিতে ক্ষেতে পানি জমে গেছে। তাই টমেটো গাছগুলো মরে যাচ্ছে। এ অবস্থায় কী করে ঋণ শোধ করবেন—তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন মাহাম আলী। কৃষক মাহাম আলী শুধু নন, কয়েক দিনের অতিবর্ষণে ধুনট, সারিয়াকান্দি ও শেরপুর উপজেলার হাজার হাজার কৃষকের ক্ষেতের ফসল নষ্ট হতে চলেছে। বৃষ্টিতে এই উপজেলার বিভিন্ন জাতের সবজি, রোপা আমন ধানসহ অন্যান্য ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। থেমে থেমে বৃষ্টি হওয়ায় মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপনেও বাধার সৃষ্টি হচ্ছে। জানা গেছে, আগাম জাতের শীতকালীন সবজি চাষে মাঠে নেমে পড়েছিলেন কৃষকরা। তিন উপজেলার প্রায় সাড়ে তিন হাজার হেক্টর জমিতে চাষ করেছেন লালশাক, ডাঁটাশাক, মিষ্টি কুমড়া, লাউ, মুলা, বেগুন, শসা, পেঁপে, টমেটোসহ বিভিন্ন জাতের সবজি। কিন্তু কয়েক দিনের বৃষ্টিতে জমি ভেজা থাকার কারণে নেতিয়ে পড়েছে বেশির ভাগ সবজি গাছ। এ ছাড়া নিচু এলাকার রোপা আমন ধানক্ষেতে বৃষ্টির পানি জমেছে। উপজেলার পাঁচথুপি গ্রামের কৃষক তজুমুদ্দিন বলেন, ‘দুই বিঘা জমিতে পেঁপের চারা রোপণ করেছি। গাছে পেঁপে ধরতে শুরু করেছে। প্রতিবছর এই ক্ষেতের পেঁপে বিক্রি করে লাভ হয় ভালো। কিন্তু এবার বৃষ্টির পরিমাণ বেশি হওয়ায় জমিতে পানি জমে গেছে। এতে গাছ ঢলে পড়ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা