kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সুনামগঞ্জ

এক রাতেই সব শেষ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এক রাতেই সব শেষ

সুনামগঞ্জ সদরের জগাইরগাঁও এলাকায় বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে আমনক্ষেত। ছবি : কালের কণ্ঠ

সুনামগঞ্জের বিস্তীর্ণ আমন ক্ষেতে এখন বুকসমান পানি। বোঝার উপায় নেই দুই দিন আগেও সেখানে ধানক্ষেত ছিল। মাত্র এক রাতের ব্যবধানেই শেষ হয়ে গেছে কৃষকের স্বপ্ন-ভবিষ্যৎ। সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত দুই হাজার ১৯০ হেক্টর জমির আমন ধান তলিয়ে যাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করা হলেও বাস্তবে ১০ হাজার হেক্টর জমির ধান তলিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা। তা ছাড়া চতুর্থ দফা পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় অনেক পুকুরের মাছও ভেসে গেছে। এর আগের বন্যাগুলোতে শতকোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে।

সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মতে, জেলায় এ বছর ৮১ হাজার ৩৮৭ হেক্টর জমিতে আমন চাষ হয়েছে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী চাষ হয়েছে। তবে বন্যার কারণে প্রায় এক মাস বিলম্বে শুরু হয়েছে চাষাবাদপ্রক্রিয়া। তার পরও সেপ্টেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে এসে চতুর্থবার পানি বাড়ায় চোখে অন্ধকার দেখছেন চাষিরা। ক্ষেত পানির নিচে থাকায় আমনে ভালো ফলন পাবেন না বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

সদর উপজেলা গৌরারং ইউনিয়ন ও তাহিরপুরের উত্তর বড়দল ইউনিয়নে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, আমন ক্ষেতে এখন বুকসমান পানি। ক্ষেতের পাশে অসহায়ভাবে তাকিয়ে আছেন অনেক কৃষক। তাঁরা বিশ্বাসই করতে পারছেন না গত বৃহস্পতিবার রাতে তাঁদের সবুজ ক্ষেত এভাবে ডুবে গেছে। শুধু এই দুই উপজেলায়ই নয়, অন্যান্য উপজেলায়ও আমনক্ষেত ডুবে নষ্ট হয়ে গেছে।

সদর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সীমা দাস বলেন, ‘আমরা ক্ষয়ক্ষতির তথ্য সংগ্রহ করছি।’ সুনামগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সফর উদ্দিন বলেন, ‘তিনবারের বন্যায় আমন চাষ বিলম্বিত হয়েছে। এখন চতুর্থ দফা পানি বৃদ্ধি পেয়ে অনেক এলাকায় আমন ক্ষেত পানির নিচে চলে গেছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা