kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ কার্তিক ১৪২৭। ২২ অক্টোবর ২০২০। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

১৭ দিন জেল খেটেও পেলেন বেতন!

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বগুড়ার শেরপুরে প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণ মামলায় ১৭ দিন কারাগারে ছিলেন সিএইচসিপি মনিরুজ্জামান প্লাবন। মাসের অর্ধেক সময় কারাগারে থাকলেও তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত না করে উল্টো পুরো বেতন-ভাতা দেওয়া হয়েছে। 

জানা যায়, গত ২ আগস্ট উপজেলার খানপুর দহপাড়া গ্রামে প্রতিবন্ধী শিশু (১০) ধর্ষণের শিকার হয়। গ্রাম্য সালিসে শিশুটির নামে ১৫ শতক জমি লিখে দিয়ে ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়া হয়। একই গ্রামের বাসিন্দা ও খানপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথকেয়ার প্রভাইডার (সিএইচসিপি) প্লাবন সালিসে নেতৃত্ব দেন। পরে ধর্ষণের শিকার শিশুটির পরিবার থানায় মামলা করে। এই মামলার অন্যতম আসামি প্লাবনকে গত ৬ আগস্ট গ্রেপ্তার করে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পান তিনি।

অথচ সরকারি চাকরিবিধি অনুযায়ী কোনো কর্মকর্তা গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে গেলে তিনি সাময়িকভাবে বরখাস্ত হবেন আর মামলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত তিনি সরকারি সুযোগ-সুবিধাসহ বেতনের অর্ধেক পাবেন।

সিএইচসিপি প্লাবন বলেন, ‘আমি গত ৫ আগস্ট সিলেটে যাওয়ার জন্য ১০ দিনের ছুটি চেয়েছিলাম। সেটাই কাজে লেগেছে।’

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আব্দুল কাদের বলেন, ‘তিনি জেলে ছিলেন, না কোথায় ছিলেন তা আমার জানা নেই।’

জেলা ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজার রহমান তুহিন বলেন, ‘নিয়ম অনুযায়ী সিএইচসিপি সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার কথা, কিন্তু এ ক্ষেত্রে কেন তা করা হয়নি তা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা