kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ কার্তিক ১৪২৭। ২৯ অক্টোবর ২০২০। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জিম্মিদশা থেকে অন্তঃসত্ত্বাকে উদ্ধার

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি   

১২ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বামীর সঙ্গে ঝগড়ার একপর্যায় অভিমান করে বাবার বাড়ি যাওয়ার প্রস্তুতি নেন রহিমা খাতুন। এ সময় জোর করে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে ঘরের ভেতর নিয়ে দরজা বন্ধ করে দেন পলাশ প্রামাণিক। শুধু তাই নয়, কেউ ঘরে ঢুকলে স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করার হুমকিও দেন। এ জন্য কেউ-ই ঘরটিতে ঢোকার সাহস পায়নি।

খবর পেয়ে পুলিশ বিকেলে ঘটনাস্থলে যায়। একাধিক কৌশলের পর সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে অক্ষত অবস্থায় রহিমাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয় তারা। ততক্ষণে পাঁচ ঘণ্টা সময় পেরিয়ে যায়। গত সোমবার বগুড়ার ধুনটের নিমগাছি ইউনিয়নের মাজবাড়ী গ্রামে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটে। এ সময় ধারালো ছুুরিসহ পলাশকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে তাঁকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জানা গেছে, প্রায় ১০ বছর আগে জিল্লার রহমানের মেয়ে রহিমার সঙ্গে পলাশের বিয়ে হয়। এরপর থেকেই তাঁদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ চলছিল। তাঁদের ঘরে চার বছর বয়সী ছেলে আছে। এ ছাড়া রহিমা পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। ধুনট থানার ওসি কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, এই ঘটনায় মেয়েপক্ষ বাদী না হওয়ায় পলাশকে ১৫১ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া রহিমা খাতুনকে তাঁর মা-বাবার জিম্মায় দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য