kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

ভাঙ্গুড়ায় ক্লিনিকের বর্জ্যে স্বাস্থ্যঝুঁকি

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি   

৯ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভাঙ্গুড়ায় ক্লিনিকের বর্জ্যে স্বাস্থ্যঝুঁকি

ক্লিনিকের জানালা দিয়ে ফেলা মেডিক্যাল বর্জ্যে ভরে আছে ড্রেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

রক্তমাখা তুলা, গজ-ব্যান্ডেজ—এ ধরনের মেডিক্যাল বর্জ্য থেকে জীবাণুর মাধ্যমে ইনফেকশন ছড়ানোর ঝুঁকি আছে। তবু যেখানে-সেখানে মেডিক্যাল বর্জ্য ফেলার অভিযোগ উঠেছে পাবনার ভাঙ্গুড়া পৌর শহরের হেলথ কেয়ার ক্লিনিকের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে গত মাসে ভাঙ্গুড়া পৌর মেয়রের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছিলেন উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফসার আলী রানা। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি বলে অভিযোগ। 

দুর্ভোগের কথা জানিয়ে এই শিক্ষক বলেন, ‘রক্তসহ (মেডিক্যাল) বর্জ্য যখন বাসার মধ্যে পড়ে তখন খুবই অস্বস্তিতে পড়তে হয়। দুর্গন্ধে অনেক সময় খেতে পারি না।’

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ভাঙ্গুড়া পৌর শহরের শরত্নগর বাজারে এক যুগ আগে হেলথ কেয়ার ক্লিনিক স্থাপিত হয়। ক্লিনিকটির দক্ষিণ ও পূর্ব পাশে আছে আবাসিক এলাকা। ক্লিনিকের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা ছাড়াও কোনো কোনো রোগীর স্বজন প্রায়ই জানালা দিয়ে মেডিক্যাল বর্জ্য বাইরে ফেলে। আর এই বর্জ্য আশপাশের বাসা ও ড্রেনে গিয়ে পড়ে, যা থেকে মারাত্মক দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়। অনেক সময় ড্রেনে বর্জ্য জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এ বিষয়ে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানিয়েও কোনো কাজ হয়নি।

ভাঙ্গুড়া পৌর মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল বলেন, ‘অভিযোগ পাওয়ার পরপরই ক্লিনিক কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি সমাধানের জন্য বলা হয়েছে। ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ পরে আশপাশের এলাকা পরিচ্ছন্ন রাখবে বলে আশ্বস্ত করেছে।’ ক্লিনিকটির মালিক ডা. মমতাজ উদ্দিন বলেন, ‘অনিচ্ছাকৃতভাবে কিছু বর্জ্য পড়লেও তা সঙ্গে সঙ্গে পরিষ্কার করে দেওয়া হয়। এর পরও আশপাশে যেন কোনো বর্জ্য না পড়ে সে বিষয়ে অধিকতর খেয়াল রাখা হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা