kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৬ সফর ১৪৪২

মিঠাপুকুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

চিকিৎসাসামগ্রী না কিনেই অর্ধকোটি টাকা উত্তোলন

রংপুর অফিস ও আঞ্চলিক প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চিকিৎসাসামগ্রী না কিনেই অর্ধকোটি টাকা উত্তোলন

রংপুরের মিঠাপুকুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রায় অর্ধকোটি টাকার চিকিৎসাসামগ্রী কেনায় ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে চিকিৎসাসামগ্রী সরবরাহ না করেই পুরো বিল উত্তোলন করেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ওষুধপত্র, যন্ত্রপাতি, গজ, ব্যান্ডেজ, তুলা ও আসবাব (এমএসআর সামগ্রী) কেনার জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। ছয়টি গ্রুপের মধ্যে চিকিৎসাসামগ্রী কেনার পাঁচটি কার্যাদেশ পায় রংপুরের মেধা কনস্ট্র্রাকশন ও নিপুণ প্রযুক্তি। ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে চিকিৎসাসামগ্রী সরবরাহের চুক্তিপত্র থাকলেও তা এখনো পায়নি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ। কিন্তু রহস্যজনক কারণে ৪৮ লাখ ৯৮ হাজার ৯৩৭ টাকা বিল উত্তোলন করে নিয়ে গেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। মালপত্র ক্রয় কমিটি সদস্য ডা. আব্দুল হালিম লাবলু বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে সব বিল উত্তোলন করে নিয়ে গেছে। তবে সম্প্রতি তারা কিছু চিকিৎসাসামগ্রী সরবরাহ করেছে বলে দাবি করেন তিনি।

সরেজমিনে মিঠাপুকুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দেখা যায়, চিকিৎসাসামগ্রী না থাকার কারণে রোগীরা নিজেরাই তা কিনে নিচ্ছেন। এ ব্যাপারে ময়েনপুর ইউনিয়নের এক রোগীর স্বজন সেফাউল ইসলাম বলেন, ‘চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে কোনো কিছুই পাচ্ছি না। তাই বাধ্য হয়ে বাইরের দোকান থেকে জরুরি পণ্যসামগ্রী কিনতে হচ্ছে।’

মেধা কনস্ট্র্রাকশনের স্বত্ব্বাধিকারী আলমাস হোসেন বলেন, ‘স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সঙ্গে ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে চুক্তিপত্র করে ৪০ লাখ টাকার একটি চেক নেওয়া হয়েছে। তবে এরই মধ্যে বেশ কিছু চিকিৎসাসামগ্রী সরবরাহ করা হয়েছে। বাকিগুলোও দ্রুত সরবরাহ করা হবে।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম বলেন, ‘ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কিছু মালপত্র সরবরাহ করেছে। তবে পুরো বিলের টাকা এরই মধ্যে তাদের দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ জন্য তাদের সঙ্গে একটি অপ্রাতিষ্ঠানিক চুক্তিপত্র করা হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা