kalerkantho

সোমবার । ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭। ১০ আগস্ট ২০২০ । ১৯ জিলহজ ১৪৪১

সড়ক বাঁচাতে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা!

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

১৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সড়ক বাঁচাতে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা!

চুয়াডাঙ্গা সদরের কবরী রোডে যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হয়েছে। ছবি : কালের কণ্ঠ

চলাচলের জন্য নির্মাণ করা হয় সড়ক। অবাক ব্যাপার হলো, এবার সড়ক বাঁচানোর জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে চলাচল। চুয়াডাঙ্গায় সড়কের প্রায় মাঝখানে পিলার পুঁতে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে যানবাহন। জেলা শহরের বেশ কয়েকটি সড়কে এভাবে পিলার পুঁতে সৃষ্টি করা হয়েছে প্রতিবন্ধকতা। ভারী যানবাহনে রাস্তা যেন ভেঙে না যায় সে কারণে এ ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে এ ব্যবস্থাকে ‘বিস্ময়কর’ বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্টজনেরা।

যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা সড়কগুলোর মধ্যে রয়েছে শহরের কবরী রোড, শেখপাড়া রোড ও সিঅ্যান্ডবি পাড়া রোড।

চুয়াডাঙ্গার অবসরপ্রাপ্ত এক সরকারি কর্মকর্তা বলেন, ‘ছোটবেলা থেকে কবরী রোড দেখছি। এই রোডটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন হাজার হাজার যানবাহন এখান দিয়ে চলাচল করে। এটি জেলা শহরের দুটি প্রধান সড়কের মধ্যে সংযোগ তৈরি করেছে। সব ধরনের যানবাহনই এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে। কয়েক দিন আগে সড়কের মধ্যে দুটি শক্ত পিলার পুঁতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে, যাতে বড় কোনো গাড়ি এই সড়কে ঢুকতে না পারে। কিন্তু এমনটা কেন করা হবে? রাস্তা তো চলাচলের জন্য। সেই চলাচল বন্ধ করে সারা জীবন রাস্তাটিকে নতুন রেখেও তো কোনো লাভ নেই। বরং রাস্তা যাতে ভেঙে না যায় সেই ব্যবস্থা নিতে হবে।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৯৬৯ সালে চিত্রনায়িকা কবরী আসেন চুয়াডাঙ্গায়। এই সড়কের একটি বাড়িতে তিনি একটি ছবির শুটিং করেন। পরে রোডটির নামকরণ করা হয় কবরী রোড। স্থানীয়দের অভিযোগ, স্বাধীনতার পর থেকে আজ পর্যন্ত এই সড়কটি খুব ভালো অবস্থায় কখনো থাকেনি। একাধিকবার সংস্কার করা হলেও তা বেশিদিন টেকেনি। সড়কটিতে যানবাহনের চাপ খুব বেশি। এতে দ্রুত ভেঙে যায় সড়ক। তা ছাড়া ‘নিম্নমানের সংস্কারকাজ’ হয়ে থাকে বলেও অভিযোগ রয়েছে। শহরের কবরী রোড ছাড়াও প্রিন্স প্লাজা মার্কেটের সামনে থেকে শেখপাড়ার দিকের রাস্তাটিতেও পিলার পুঁতে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে।

কবরী রোডের ব্যাপারে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার প্যানেল মেয়র মুন্সী রেজাউল করিম খোকন বলেন, ‘এটি শহরের প্রধান দুই সড়কের মধ্যে সংযোগ তৈরি করেছে। মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ প্রধান সড়ক হতে শুরু হয়ে সড়কটি কলেজ রোডে গিয়ে শেষ হয়েছে। এই সড়কে যানবাহনের চাপ খুবই বেশি। রাতের অন্ধকারে এই সড়কে ১০ চাকার ভারী ট্রাকও ঢুকে পড়ে। বড় যানবাহন ঠেকানোর জন্য কিছুদিন আগে এই সড়কে পিলার পুঁতে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা