kalerkantho

রবিবার। ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭। ৯ আগস্ট ২০২০ । ১৮ জিলহজ ১৪৪১

মনোহরদী

গরিবের আধা লাখ টাকা নেতার পেটে

মনোহরদী (নরসিংদী) প্রতিনিধি   

৭ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নরসিংদীর মনোহরদীতে বয়স্ক, বিধবা, মাতৃত্বকালীন ভাতা ও চালের কার্ড করে দেওয়ার নাম করে দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে অন্তত অর্ধ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা।  উপজেলার একদুয়ারিয়া ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ ভূঞার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি চকবগাদী গ্রামের সিরাজ উদ্দিন ভূঞার ছেলে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। অভিযোগে জানা যায়, হারুন অর রশিদ মাতৃত্বকালীন ভাতার কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে চকবগাদী গ্রামের জুয়েল মিয়ার স্ত্রী তানিয়া আক্তারের কাছ থেকে দুই হাজার, রমিজ উদ্দিনকে বয়স্ক ভাতা করে দেওয়ার নামে ছয় হাজার, একই গ্রামের মৃত সিরাজ উদ্দিনের স্ত্রী মুর্শিদা বেগমকে বিধবা ভাতার লোভ দেখিয়ে তিন হাজার ৫০০ ও তাজুল ইসলামের স্ত্রী মাজেদা বেগমকে চালের কার্ড করে দেওয়ার কথা বলে দুই হাজার টাকা নিয়ে তা আত্মসাৎ করেছেন। একইভাবে ওই গ্রামের ২০-২৫ জন দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে বিভিন্ন ভাতার কার্ড করে দেওয়ার নাম করে অন্তত অর্ধ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। অথচ তাঁদের কেউই কোনো কার্ড পাননি।

ষাটোর্ধ্ব রমিজ উদ্দিন বলেন, ‘আমি গরিব মানুষ। অল্প টাকা পুঁজি নিয়ে কলার ব্যবসা করে অনেক কষ্টে সংসার চালাই। পাঁচ মাস আগে হারুন অর রশিদ বয়স্ক ভাতার কার্ড করে দেবে বলে আমার কাছ থেকে ছয় হাজার টাকা নেয়। এখনো কার্ড পাইনি।’ এ বিষয়ে হারুন অর রশিদ বলেন, ‘রাজনৈতিভাবে হেয় করার জন্য আমার নামে এসব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।’ মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাফিয়া আক্তার শিমু বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা