kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

ভাইয়ের দিকে ছোড়া বল্লমের সামনে ঝাঁপিয়ে প্রাণ দিল বোন

নান্দাইলে সংঘর্ষের ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাহেদ আলী ও লাল মিয়া দুই ভাই। পৈতৃক জমি নিয়ে দুই ভাইয়ের বিরোধ অনেক দিনের। সালিসের সিদ্ধান্ত সাহেদের পক্ষে গেলেও লাল মিয়া তা নাকচ করেন। সর্বশেষ লাল মিয়ার ছেলেরা বরং হামলা চালায় সাহেদের ছেলেদের ওপর। লাল মিয়ার ছেলের ছোড়া বল্লম ভাইয়ের দিকে আসতে দেখে সামনে ঝাঁপিয়ে পড়ে সাহেদের মেয়ে স্কুলছাত্রী ইতি আক্তার সেলিনা (১৭)। ভাইকে বাঁচাতে পারলেও নিজের জীবনের ইতি ঘটে ইতির। গতকাল শনিবার ভোরে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার রাজগাতী ইউনিয়নের বনাটি বাজুপাড়া গ্রামে ঘটেছে এ মর্মান্তিক ঘটনা।

ইতি গত বছর কাশিনগর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল। পাস করতে না পারায় আগামীবারের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

নিহতের পরিবারের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ লাল মিয়ার স্ত্রী জামেনা, মেয়ে নাজমা ও ভাই চান মিয়াকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। দেশীয় অস্ত্রও উদ্ধার করে পুলিশ। তবে বাকি অভিযুক্তরা ঘটনার পর পলাতক। পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জের আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

গতকাল ইতিদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির আঙিনায় মরদেহ পড়ে আছে। পুলিশ সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করছে। মা, বাবা, অন্য বোনেরা আহাজারি করছিলেন। বাবা সাহেদ পাগলের মতো বলছেন, ‘রিপন আমার ছেড়িডারে বল্লম দিয়া ঘা দিয়া মারছে। হেরেও একটা ঘা দেইন।’ মা শিরিন আক্তারও মরদেহের সামনে আছড়ে পড়ে বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন।

প্রতিবেশীরা জানায়, গতকাল ভোরে সাহেদের ছেলেরা নিজেদের জমিতে বীজতলা তৈরি করতে নামলে লাল মিয়ার ছেলেরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের চারদিকে ঘিরে ধরে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে ইতি দেখতে পায় চাচাতো ভাই রিপন একটি বল্লম ছুড়ে মারছে তার ভাই শহিদের দিকে। তখন ইতি ভাই শহিদকে বাঁচাতে বল্লমের সামনে ঝাঁপিয়ে পড়ে। বল্লমটি তার গলায় গেঁথে যায়। হাসপাতালে নেওয়ার পথে ইতি মারা যায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা