kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭। ১১ আগস্ট ২০২০ । ২০ জিলহজ ১৪৪১

গুরুদাসপুরে হুমকির মুখে জনস্বাস্থ্য

চানাচুর কারখানায় দূষণ

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি   

৩ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চানাচুর কারখানায় দূষণ

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার খামারনাচকৈড় টলটলি পাড়া সড়কের দুই পাশে আব্দুল মজিদের চিমনিহীন চানাচুর কারখানা থেকে ধোঁয়া উঠছে (ওপরে); ভেতরে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ভাজা হয় চানাচুর। ছবি দুটি গতকালের। ছবি : কালের কণ্ঠ

নাটোরের গুরুদাসপুর পৌর সদরের খামারনাচকৈড় টলটলিপাড়া সড়কের দুই পাশে আব্দুল মজিদের দুটি চিমনিহীন চানাচুর কারখানায় পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। এ ছাড়া কারখানার ভেতরে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ দেখা গেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় চানাচুর কারখানায় যান স্থানীয় দুই সাংবাদিক। তাঁরা কালো ধোঁয়া, মেঝেতে পড়ে থাকা পচা তেল ও তেলের ড্রাম, চানাচুরের খোলা বস্তা, নোংরা তেলের কড়াই, একই স্থানে জেনারেটর এবং ব্যবহৃত অন্যান্য জিনিসসহ আবর্জনার ভিডিও করার চেষ্টা করেন। কারখানার লোকজন সাংবাদিকদের বাধা দেয়। এমনকি পেছন থেকে মোবাইল ফোনসেট কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন মালিক আব্দুল মজিদ। তাতেও ব্যর্থ হয়ে শাটার বন্ধ করার হুকুম দেন কর্মচারীদের। কারখানা থেকে বেড় হওয়ার পর সাংবাদিকদের দেখে নেওয়ার হুমকিও দেন। হুমকি দেওয়ার পর স্থানীয় হেলিপ্যাডের সামনে তাঁর ছেলেকে দিয়ে সাংবাদিকের মোটরসাইকেল থামিয়ে পথরোধ করান। এ সময় তাঁর ছেলে সংবাদ প্রকাশ করতে নিষেধ করেন।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে, কারখানা চালু করার সঙ্গে সঙ্গে কালো ধোঁয়ার ছাইয়ে ভরে যায় আশপাশের সব ঘরবাড়ি। চানাচুর ভাজার সময় ওই সড়ক দিয়ে চলাচল করলে হাঁচি-কাশির মতো শারীরিক সমস্যায় ভুগতে হয়। স্থানীয়রা মালিককে জানালে তিনি এড়িয়ে যান। প্রশাসনকে তোয়াক্কা করেন না বলে জানান।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তমাল হোসেন জানান, তিনি বিষয়টি দেখবেন।

গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. মোজাহারুল ইসলাম বলেন, ‘সাংবাদিকদের তথ্য সংগ্রহের কাজে বাধা দেওয়া অনিয়মতান্ত্রিক। লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা