kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

চাকরিহারা ৬০০ স্বাস্থ্যকর্মী

রংপুর অফিস   

৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনা পরিস্থিতির কারণে রংপুরের বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর বেশির ভাগই এখনো বন্ধ রয়েছে। এরই মধ্যে বেসরকারি চিকিৎসাকেন্দ্রের ছয় শতাধিক কর্মচারী চাকরি হারিয়েছেন। হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোর আয় কমে যাওয়ায় ওই সব স্বাস্থ্যসংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের ছাঁটাই করা হয়েছে। চাকরি হারিয়ে তাঁরা বেকার অবস্থায় পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তবে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক অ্যাসোসিয়েশন বলছে, ছাঁটাই নয়, তাঁদের চাকরি আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে রংপুর ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সামছুর রহমান কোয়েল বলেন, ‘এটাকে ছাঁটাই বলা ঠিক হবে না। ওই সব কর্মচারীর চাকরি আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। রংপুরে বর্তমানে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোর আয় প্রায় শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। তাই বড় প্রতিষ্ঠানগুলো কিছু কর্মচারীর চাকরি স্থগিত করেছে।’ পরিস্থিতির উন্নতি হলে আবার তাঁদের চাকরিতে নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রংপুরে অ্যাসোসিয়েশনভুক্ত ১১৮টি বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। এর মধ্যে কমিউনিটি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল, প্রাইম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল, ল্যাবএইড, পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারসহ ১০ থেকে ১৫টি বড় বড় স্বাস্থ্যসেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মচারীর সংখ্যা রয়েছে ২০০ থেকে ৬০০ জন পর্যন্ত। তাঁদের কেউ কেউ আয়া, পিয়ন, বয়সহ বিভিন্ন পদে চাকরি করতেন। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে কর্মচারী-কর্মকর্তাদের মাসিক বেতন দেওয়া হতো কোটি টাকার ওপরে।

মন্তব্য