kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

কালীগঞ্জে গণধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ গুম

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি   

৫ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের দাদপুর গ্রামে তিন বন্ধু মিলে ধর্ষণ করে নববধূ কেয়ার লাশ মাটিচাপা দেয় ব্যর্থ প্রেমিক মিলন ও তাঁর সহযোগীরা। লাশ উদ্ধারের তিন মাস পর হত্যার মূল রহস্য উদ্ঘাটন করল ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ থানা পুলিশ। এ ঘটনায় হত্যাকারী তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন কালীগঞ্জের ত্রিলোচনপুর গ্রামের মিলন হোসেন, ইসরাফিল ও আজিম।

জানা যায়, গত ১৩ মার্চ উপজেলার দাদপুর গ্রামের একটি রাস্তার পাশ থেকে চুলের ক্লিপ, মাথার চুল ও একটি স্যান্ডেল পাওয়া যায়। এর সূত্র ধরে ওই গ্রামের মাঠ থেকে কলাগাছ ও গাছের পাতার নিচে মাটিতে পুঁতে রাখা গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে লাশটি উপজেলার ত্রিলোচনপুর গ্রামের আব্দুস সামাদের মেয়ে কেয়া খাতুনের বলে শনাক্ত করে তাঁর স্বজনরা। পুলিশ সুপার বলেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা জানিয়েছে, ঘটনার দিন গত ২৬ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টার দিকে কেয়াকে মিলন তার বাবার বাড়ি থেকে ফুসলিয়ে ডেকে নিয়ে যায়। বাড়ি থেকে দুই কিলোমিটার দূরের মাঠে নিয়ে গিয়ে প্রথমে মিলন তাঁকে ধর্ষণ করে। পরে একে একে আজিম ও ইসরাফিলও তাঁর ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা