kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

সুনামগঞ্জে বোরো সংগ্রহে কৃষক বাছাইয়ে অনিয়ম

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৩ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুনামগঞ্জে বোরা ধান সংগ্রহে কৃষক তালিকায় বিভিন্ন স্থানে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে। প্রশ্ন উঠেছে লটারির নামে কৃষক বাছাই নিয়েও।

জানা গেছে, সরকারি ধান কেনার জন্য সুনামগঞ্জের মোহনপুর ইউনিয়নের ১২৯ জন কৃষককে বাছাই করে তালিকা করা হয়। যাচাইয়ের সময় বাণীপুর গ্রামের একই পরিবারের তিনজনকে তালিকাভুক্ত করা হয়। তাঁরা সম্পর্কে সহোদর। তা ছাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের ভোট ব্যাংক হিসেবে পরিচিত সরদারপুর গ্রামের লোকসংখ্যা পাশের মোহনপুর গ্রামের এক-চতুর্থাংশ হলেও এই গ্রামের ১৪ জন কৃষকের নাম তালিকায় রয়েছে। তাঁর নিজের গ্রাম বাণীপুর অপেক্ষাকৃত ছোট হলেও এই গ্রামের ১৬ জন কৃষকের নাম তালিকায় উঠেছে। কিন্তু ইউনিয়নের সবচেয়ে বড় গ্রাম মোহনপুরের মাত্র ১০ জন কৃষকের নাম তালিকায় রয়েছে। পাশের গ্রাম বর্মাত্তরের লোকসংখ্যা বাণীপুরের চেয়ে বেশি হলেও এই গ্রামের মাত্র দুজন তালিকায় স্থান পেয়েছেন। এ নিয়ে এলাকাবাসী কৃষি কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ জানিয়েছে।

ইউনিয়নের নৌকাখালী গ্রামের আব্দুল কাইয়ুম বলেন, চেয়ারম্যান কৃষক তালিকায় স্বজনপ্রীতি করেছেন। তাঁর গ্রামে সবচেয়ে বেশি মানুষ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। তিনি নিজেও বড় কৃষকের তালিকায় আছেন।

মোহনপুর ইউনিয়ন কৃষি কর্মকর্তা এ কে এম জাকারিয়া বলেন, ‘চেয়ারম্যান সাহেব বড় কৃষক। কাগজও দেখিয়েছেন। তাই বড় কৃষক হিসেবে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। লোকবল কম থাকায় পুরো ইউনিয়নের বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রকৃত কৃষক অনেক সময় যাছাই করা সম্ভব হয় না। তাই ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলেই আমরা তালিকা তৈরি করেছি।’

হাওরের কৃষি ও কৃষক রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন তালুকদার বলেন, ‘কৃষক নির্বাচন নিয়ে কোথাও কোথাও প্রশ্ন উঠেছে। আমরা ইউনিয়ন পর্যায় থেকে ধান সংগ্রহের দাবি জানিয়ে আসছি।’

মন্তব্য