kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

বগুড়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার রহস্যজনক মৃত্যু

পরিবারের দাবি পরিকল্পিত হত্যা

শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি   

২৯ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বগুড়ায় গতকাল শনিবার নূর আলম (৩০) নামের এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের দাবি, তাঁকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নূর আলম শাজাহানপুর উপজেলার অন্তর্গত বগুড়া পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের গণ্ডগ্রাম পূর্বপাড়ার আব্দুল মজিদের ছেলে এবং বনানী বন্দর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক।

নূর আলমের বড় ভাই জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নূরুন্নবী অভিযোগ করেন, গণ্ডগ্রামে একটি রাস্তা নির্মাণকে কেন্দ্র প্রতিবেশী আব্দুর রশিদ বাবলুর সঙ্গে স্থানীয়দের দ্বন্দ্ব হয়। এ নিয়ে গত বুধবার স্থানীয়দের সঙ্গে বাবলু ও তাঁর ভাইদের হাতাহাতি হয়। এর জেরে বাবলুর ভাই ইসমাইল হোসেন সবুজ বাদী হয়ে নূর আলমসহ স্থানীয়দের নামে থানায় মামলা করেন। মামলার ভয়ে সেদিন থেকেই নূর আলম তাঁর এক বন্ধুর মেসে আত্মগোপনে ছিলেন। এ অবস্থায় গতকাল সকালে নূর আলমের বন্ধু মোজাম্মেল ফোন করে জানায় সে মারা গেছে। আর লাশ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আছে।

এদিকে নূর আলমের বাবা জাতীয় পার্টির (জেপি) কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও জেলা সভাপতি আব্দুল মজিদ অভিযোগ করেন, শাজাহানপুর থানা-পুলিশের ইন্ধনে এবং বাবলুর হুকুমে পরিকল্পিতভাবে তাঁর ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মাসুদ জানান, নূর আলমের মৃত্যুর খবর পুলিশের মাধ্যমে পেয়েছেন তাঁরা।

অন্যদিকে শাজাহানপুর থানার ওসি আজিম উদ্দীনও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

এদিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক শওকত জামিল বলেন, ‘মৃত অবস্থায় নূর আলমকে মেডিক্যালে নিয়ে আসা হয়েছে। লাশের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই। অতিরিক্ত মদ্যপান করলে বমি বা মুখে ফ্যানা থাকার কথা। কিন্তু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন অবস্থায় লাশটি মেডিক্যালে নিয়ে আসা হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা