kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

পোল্ট্রির বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে তুলসীগঙ্গা নদীর পানি

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পোল্ট্রির বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে তুলসীগঙ্গা নদীর পানি

জয়পুরহাটের তুলসিগঙ্গা নদীর পানি পোল্ট্রির বর্জ্যে দূষিত হয়ে গেছে। ছবিটি আক্কেলপুর উপজেলার সোনামুখী এলাকা থেকে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিসিক শিল্পনগরীর কল-কারখানা ও জামালগঞ্জ এলাকার ছোট-বড় প্রায় ১০ হাজার পোল্ট্রি শিল্পের বর্জ্য নিঃসৃত ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত পানি দূষিত করছে জয়পুরহাটের তুলসীগঙ্গা নদী। যত্রতত্র ডিমের খোসা, মরা মুরগি ও পোল্ট্রির বর্জ্যে খোলা নর্দমার মাধ্যমে প্রবাহিত পানি কালচে হয়ে মিশছে ওই নদীতে।

জানা গেছে, প্রায় ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি খাল দিয়ে জেলা শহর থেকে বর্ষার পানি অপসারিত হয়ে আসছে আক্কেলপুরের সোনামুখী এলাকার তুলসীগঙ্গা নদীতে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে জয়পুরহাট চিনিকল, পৌরসভা, বিসিক শিল্পনগরী ও জামালগঞ্জের ছোট-বড় প্রায় ১০ হাজার পোল্ট্রি শিল্প ও হ্যাচারির বর্জ্য। এতে আবর্জনার স্তূপে খালটি স্বকীয়তা হারিয়ে সরু নর্দমায় পরিণত হয়েছে। একই পথে জয়পুরহাট চিনিকলের বর্জ্য নিঃসৃত পানি নিষ্কাশন করা হলেও গত ৩০ জানুয়ারি থেকে আখ মাড়াই মৌসুম শেষ হওয়ায় চিনিকলের পানি নিষ্কাশন বন্ধ রয়েছে।

সরেজমিন খালটির জামালগঞ্জ বাইপাস সড়ক সেতু, জয়পুরহাট-আক্কেলপুর আঞ্চলিক সড়কের জামালগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ মোড় এলাকার সেতু, জিয়াপুর প্রাথমিক স্কুলসংলগ্ন সেতু ও রাজকান্দা সেতু এলাকায় পোল্ট্রির বর্জ্যের স্তূপ দেখা গেছে। একদল কুকুরকে দেখা গেছে বর্জ্য নিয়ে টানাটানি করতে। ওই সব বর্জ্যের কারণে কালো রং ধারণ করা পানি খাল দিয়ে গিয়ে মিশছে তুলসীগঙ্গা নদীতে।

স্থানীয় কৃষক শাহাদত হোসেন, আব্দুর রহিম ও মোজাম্মেল হক বলেন, খালের পানি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে গেছে। জমিতে এই পানি ব্যবহার করলে ফসল নষ্ট হয়। এ নিয়ে প্রতিবাদ করার পর ইদানীং জামালগঞ্জ বাইপাস সড়ক সেতুর নিচে পোল্ট্রি বর্জ্য ফেলা বন্ধ রয়েছে।

তবে জামালগঞ্জ বাজারের শেফালী পোল্ট্রি অ্যান্ড হ্যাচারির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক দাবি করেন, মুরগির বর্জ্যে তুলসীগঙ্গা নদী দূষিত হওয়ার অভিযোগ ঠিক নয়। কারণ মুরগির বর্জ্যগুলো ডাম্পিং করা হয় নিজস্ব জায়গায়। আর পানি ফেলা হয় নিজস্ব পুকুরে। তাহলে খালের বিভিন্ন স্থানে মুরগির বর্জ্য আসছে কোথা থেকে জানতে চাইলে তিনি এর জবাব দিতে পারেননি।

‘নদী ঘুরাও নদীর পথে’ সংগঠনের জয়পুরহাট জেলা শাখার সভাপতি আজিজুল হক বিশ্বাস বলেন, ‘জয়পুরহাট বিসিক শিল্পনগরীর কল-কারখানার ময়লা পানি ও জামালগঞ্জ এলাকার হাজারো পোল্ট্রি ও হ্যাচারির বর্জ্যে তুলসীগঙ্গা নদী দূষিত হচ্ছে। প্রশাসনের সহযোগিতায় এই দূষণরোধে সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা চেষ্টা করছি।’

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, পরিবেশদূষণ রোধে জেলার পোল্ট্রি ও হ্যাচারি শিল্পের বর্জ্য ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণের চেষ্টা চলছে। তুলসীগঙ্গা নদীর পানি হঠাৎ কালচে রং ধারণ করার বিষয়টি পরিবেশ অধিদপ্তরকে জানানো হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা