kalerkantho

সোমবার  । ১৬ চৈত্র ১৪২৬। ৩০ মার্চ ২০২০। ৪ শাবান ১৪৪১

দমদমা দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়

ব্যাবহারিক পরীক্ষার নামে অর্থ আদায় শিক্ষার্থীকে মারধর

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বগুড়ার নন্দীগ্রামে এসএসসি ব্যবহারিক পরীক্ষায় দমদমা দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এমনকি টাকা দিতে না পারায় এক পরীক্ষার্থীকে মারধর করে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

পরীক্ষার্থীরা জানায়, লিখিত পরীক্ষার শেষ দিন গতকাল শনিবার ব্যবহারিক পরীক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ও মানবিক শাখায় ৩০০ টাকা করে নিয়ে যেতে বলা হয়। টাকা না দিলে ফেল করিয়ে দেওয়া হতে পারে, এমন হুমকিও দেওয়া হয়েছিল। বাধ্য হয়ে অনেক শিক্ষার্থী পরীক্ষা শুরুর আগেই টাকা জমা দেয়। এদিকে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিজ্ঞান শাখার সিহাব উদ্দিন ও মানবিক শাখার বিথিন কুমার ব্যবহারিক পরীক্ষার টাকা দিতে না পারায় তাদের পরীক্ষা দিতে দেননি প্রধান শিক্ষক।

এ ব্যাপারে বিজ্ঞান শাখার পরীক্ষার্থী সিহাব উদ্দিন বলে, ‘৩০০ টাকা দিতে না পারায় আমাকে প্রধান শিক্ষক বেদম মারধর করে বিদ্যালয় থেকে বের করে দিয়েছেন। পাশাপাশি মানবিক শাখার বিথিন কুমারকে পরীক্ষা দিতে দেননি।’

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক ফজলুর রহমান বলেন, ‘৩০০ টাকা নয়, কেন্দ্রে খরচের জন্য ৫০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। তবে বিথিন কুমার স্কুলে এসে বাড়িতে চলে গেছে। সে কি কারণে পরীক্ষা দেয়নি—তা আমি জানি না এবং সিহাবকে মারধর করা হয়নি।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছা. শারমিন আখতার বলেন, ‘ঘটনা শুনেছি। তদন্ত করে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা