kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

চিতলমারী-কচুয়া

৩২০টির মধ্যে ১৯৬টিতেই নেই

চিতলমারী-কচুয়া (বাগেরহাট) প্রতিনিধি   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



বাগেরহাটের চিতলমারী ও কচুয়ার ৩২০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৯৬টিতেই শহীদ মিনার নেই। সচেতনমহলের মতে, মহান ভাষা আন্দোলনের ৬৮ বছরেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শহীদ মিনার না থাকাটা লজ্জাজনক। শহীদ মিনার নির্মাণের ক্ষেত্রে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যবস্থাপনা কমিটির ভূমিকা বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চিতলমারীর ১৯৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৩৩টি ও কচুয়ার ১২৬টির মধ্যে ৬৩টিতেই শহীদ মিনার নেই। অন্যদিকে কচুয়ার ৫০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১০টি মাদরাসা ও তিনটি কিন্ডারগার্টেনে নেই শহীদ মিনার।

চিতলমারীর উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম আলী আকবর বলেন, ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্থায়ী শহীদ মিনার থাকলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে তা নিয়ে জানার কৌতূহল তৈরি হয়। প্রতিটি বিদ্যালয় আকারে ছোট হলেও স্থায়ী শহীদ মিনার তৈরির উদ্যোগ নিতে পারে বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি।’

তিনি আরো বলেন, ‘চিতলমারীর ১১১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ৮৬টিতে স্থায়ী শহীদ মিনার নেই। তবে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদ্যাপিত হয় কলাগাছ, কাগজ ও অন্য উপকরণ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা