kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৯  মে ২০২০। ৫ শাওয়াল ১৪৪১

কালীগঞ্জ

‘আপনার বিধবা ভাতার কার্ড হবে না’

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘আবেদন নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে গেছেন। আপনার বিধবা ভাতা হবে না। ড্রয়ারের মধ্যে (আবেদন) রাখলাম। এটা আর আলোর মুখ দেখবে না’—এ কথা বলে ষাটোর্ধ্ব ভবানী দাসীকে তাড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কৌশিক খানের বিরুদ্ধে। এ সময় কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে যান ভবানী। গত সোমবার উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে ঘটনাটি ঘটে। ভবানী শিবনগর গ্রামের সূর্যকান্ত দাসের (মৃত) স্ত্রী।

জানা যায়, ১৫ বছর আগে ভবানীর স্বামী মারা যান। এর পর থেকে ভিক্ষাবৃত্তি করছেন তিনি। মাঝেমধ্যে ঝিয়ের কাজও করেন। গত বছরের ২৮ অক্টোবর বিধবা ভাতার কার্ডের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে আবেদন করেন তিনি। পরে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সমাজসেবা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন ইউএনও সুবর্ণা রানী সাহা।

ভবানীর অভিযোগ, আবেদন যাচাই-বাছাই করতে আসা সমাজসেবা কার্যালয়ে মাঠকর্মী তাঁর কাছে পাঁচ শ টাকা দাবি করেন। কিন্তু তিনি টাকা দিতে পারেননি। এ কারণে তাঁর কার্ডও হয়নি। তবে মাঠকর্মীর নাম বলতে পারেননি তিনি।

পরে এলাকার লোকজনের মাধ্যমে কালীগঞ্জ প্রেস ক্লাবে গিয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের বিষয়টি জানান ভবানী।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কৌশিক বলেন, ‘আর কোনো সুযোগ নেই।’  উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম জাহাঙ্গীর সিদ্দিক ঠাণ্ডু বলেন, ‘আবেদনসহ ভবানী দাসীকে আমার কাছে পাঠিয়ে দিন। আমি বিষয়টি দেখব।’

প্রসঙ্গত, উপজেলায় ছয় মৃত ব্যক্তিসহ ২০ জনের নামে ভুয়া ঋণ তোলে সমাজসেবা অফিস। সম্প্রতি এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। পরে ইউএনও বিষয়টির তদন্তের জন্য উপজেলা সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ সাইদুর রহমান রেজাকে নির্দেশ দেন। এতে ক্ষিপ্ত হন সমাজসেবা কর্মকর্তা কৌশিক। এর পর থেকে সাংবাদিকদের নিয়ে কটূক্তি করে বেড়াচ্ছেন তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা