kalerkantho

শুক্রবার । ২০ চৈত্র ১৪২৬। ৩ এপ্রিল ২০২০। ৮ শাবান ১৪৪১

আলমডাঙ্গায় ব্ল্যাস্টে আক্রান্ত গম

কৃষকের স্বপ্নে ছত্রাকের থাবা

আলমডাঙ্গা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হচ্ছে গমক্ষেত। মাঠে মাঠে ছড়িয়েছে এ ছত্রাকঘটিত ব্যাধি। এ রোগ প্রতিরোধে কৃষকরা কীটনাশক ব্যবহার করেও কোনো সুফল পাচ্ছেন না। ফলে এ মৌসুমে গম চাষ করে আলমডাঙ্গার কৃষক লোকসানের মুখে পড়তে পারেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গার চারটি উপজেলায় এ মৌসুমে ৭৭১ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় ৩৫ হেক্টর, আলমডাঙ্গায় ৪৯২, দামুড়হুদায় ১৩৭ ও জীবননগরে ১০৭ হেক্টর জমিতে গম চাষ হচ্ছে।

কিন্তু আলমডাঙ্গা উপজেলায় ব্লাস্ট রোগ ছড়িয়ে পড়ায় উপজেলার সার্বিক গম উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে কৃষকরা আশঙ্কা করছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র আরো জানায়, আলমডাঙ্গা উপজেলায় সবচেয়ে বেশি গমের আবাদ হয় প্রতিবছর। গত বছর গমের ফলন ও দাম ভালো হওয়ায় এ মৌসুমে কৃষকরা অন্য ফসলের চেয়ে গম চাষ বেশি করছেন। কিন্তু বারি ২৬-৩০ জাতের গমক্ষেত ব্লাস্ট রোগে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে।

উপজেলার পাঁচলিয়া গ্রামের কৃষক বাবুল হোসেন জানান, ব্লাস্ট আক্রান্ত গমক্ষেতের শীষ শুকিয়ে যাচ্ছে। গমের কোনো ফল থাকছে না। দূর থেকে দেখলে মনে হচ্ছে গমক্ষেত পেকে রয়েছে। কিন্তু গম পাকার বেশ আগেই শুকিয়ে যাচ্ছে। গমের শীষ শুকিয়ে গেলেও গাছের রং সবুজ থাকছে।

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল আজিজ বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে সহজে গমক্ষেত ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হতে পারে। রাতে তাপমাত্রা কম থাকছে আর দিনে তাপমাত্রা বেশি ও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির কারণে গমক্ষেত ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। আক্রান্ত বীজ ও বাতাসের মাধ্যমে এ রোগ ছড়ায়। ব্লাস্টমুক্ত বীজ সংগ্রহ করতে ও কম সংবেদনশীল জাত বিশেষ করে বারি-২৮,৩০ চাষ করতে কৃষকদের উৎসাহিত করতে হবে।

আলমডাঙ্গা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘আমরা গমের জমি ঘুরে দেখেছি। আবহাওয়া স্বাভাবিক হলেই ব্লাস্ট রোগের প্রকোপ অনেকাংশে কমে আসবে।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক সুফি রফিকুজ্জামান জানান, ‘আমরা কৃষকদের বারি ৩০ জাতের গম চাষে নিরুসাহিত করছি। বারি ৩১-৩৩ জাতের গম বীজ ব্লাস্ট প্রতিরোধী। কৃষি অফিস থেকে পরামর্শ নিয়ে গম চাষের জন্য কৃষকদের সতর্ক করেছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা