kalerkantho

সোমবার । ১০ কার্তিক ১৪২৭। ২৬ অক্টোবর ২০২০। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ডামুড্যা

ভাঙা সড়ক, ফেরিঘাট বেইলি ব্রিজে ভোগান্তি

ডামুড্যা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি   

২৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ থেকে ইব্রাহিমপুর ফেরিঘাট দিয়ে যাতায়াতকারী গণপরিবহন, মালবাহী ট্রাকসহ সব ধরনের যানবাহনকে বিভিন্ন ধরনের ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। পাঁচটি বেইলি ব্রিজ ও সড়কের বেহাল, নদীতে নাব্যতা সংকট, ঘন কুয়াশায় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকা, বিভিন্ন পয়েন্টে চাঁদাবাজি, সিরিয়াল ভাঙার মতো ঘটনায় এই রুটের চালক ও যাত্রীরা রীতিমতো বিরক্ত।

এদিকে শরীয়তপুর সদরের মনোহর বাজার থেকে ইব্রাহিমপুর ফেরিঘাট পর্যন্ত ৩২ কিলোমিটার সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে বেহালের কারণে সড়কপথে যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মালবাহী গাড়ি উল্টে পড়ে থাকে এই সড়কে। বর্ষার কাদাপানির পর বর্তমানে ধুলাবালিতে অসহনীয় হয়ে উঠেছে যাত্রী, চালক ও সড়কের আশপাশে বসবাসকারীদের জীবন। বিশেষ করে এই রাস্তার বেইলি ব্রিজগুলো যানবাহন চলাচলের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, খুলনা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শরীয়তপুর-চাঁদপুরের ইব্রাহিমপুর ফেরিঘাট দিয়ে প্রতিদিন বরিশাল, পটুয়াখালী, খুলনা, যশোর, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, মাদারীপুরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টির বেশি জেলার হাজারো যাত্রী ও মালবাহী যানবাহন চলাচল করে। কিন্তু ঘন কুয়াশার কারণে প্রায় এক সপ্তাহ ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় প্রতিদিন সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এ রুটের যাত্রী ও চালকরা। সড়কে কয়েক কিলোমিটারজুড়ে তৈরি হয়েছে পারাপারের অপেক্ষায় থাকা বাস, ট্রাক, কার্গো-পিকআপসহ বিভিন্ন যানবাহনের সারি।

খুলনা থেকে আসা ট্রাকচালক আবুল হোসেন, ইয়াসিন বলেন, রাস্তার বেহালের কারণে এমনিতেই ভোগান্তি পোহাতে হয়, এর মধ্যে আবার সুযোগ পেলেই নারায়ণপুরসহ বিভিন্ন নির্জন পয়েন্টে একটি চক্র গাড়ি থামিয়ে চাঁদাবাজি করে।

শরীয়তপুর সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আশিক কাদির বলেন, ইব্রাহিমপুর ফেরিঘাট থেকে মনোহর বাজার পর্যন্ত সড়কটির কাজ চলছে। ফেব্রুয়ারি থেকে পুরোদমে কাজ শুরু হবে।ফেরিঘাটের অব্যবস্থাপনা বিষয়ে ইব্রাহিমপুর ফেরিঘাটের দায়িত্বরত বিআইডাব্লিউটিসির সহকারী ম্যানেজার আব্দুল মোমেন বলেন, ঘন কুয়াশা ও ডুবোচরের কারণে রাতে অনেক সময় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। শিগগিরই ফগ লাইটের কথা কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা