kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

রেললাইনে ছাত্রের লাশ হত্যা বলছে পরিবার

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

২৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রেললাইনে ছাত্রের লাশ হত্যা বলছে পরিবার

প্রতীকী ছবি

সাতক্ষীরার আশাশুনিতে ট্রেনলাইনে দুই পা বিচ্ছিন্ন অবস্থায় এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গত শনিবার রাত ৮টার দিকে খুলনার ফুলতলা রেলওয়ে থানা পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধার করে। এর আগে দুপুরে একই কলেজের এক ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে প্রত্যাখ্যাত হয়ে তিনি ব্লেড দিয়ে নিজের শরীরে আঘাত করেন। তবে তাঁর পরিবারের দাবি, ওই মেয়ের পরিবার তাঁকে অপহরণের পর হত্যা করে লাশ ট্রেনলাইনে ফেলে রেখেছে।

গত রবিবার রাতে খুলনা থেকে লাশ আশাশুনি উপজেলার খাজরা ইউনিয়নের গজুয়াকাটি গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চলছে শোকের মাতম। নিহত শুভজিৎ সানা (১৯) উপজেলার খাজরা ইউনিয়নের গজুয়াকাটি গ্রামের ভবতোষ সানার ছেলে ও বড়দল কলেজিয়েট স্কুলের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

সহপাঠীরা জানান, শুভজিৎ কয়েক দিন আগে বড়দল কলেজের একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে প্রত্যাখ্যাত হন। গত শনিবার কলেজে আবার প্রেমের প্রস্তাব দিয়েও তিনি প্রত্যাখ্যাত হন। তাতে ক্ষুব্ধ হয়ে শুভজিৎ ব্লেড দিয়ে নিজের হাতে আঘাত করেন। দুপুর ১২টার দিকে শুভজিৎ ভ্যানে উঠে বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। কিন্তু তিনি বাড়ি ফেরেননি।

এদিকে শুভজিতের বাবা ভবতোষ সানা জানান, ওই কলেজছাত্রীর বাবা ক্ষুব্ধ হয়ে গত শনিবার বিকেলে তাঁদের গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য দেবব্রত সরকারের বাড়িতে এসে শুভজিৎ সম্পর্কে হুঁশিয়ারি দিয়ে যান। ভবতোষের আশঙ্কা, তিনিই লোকজন দিয়ে শুভজিতকে অপহরণ করে হত্যার পর লাশ ফেলে দিয়েছেন।

ওই কলেজছাত্রীর বাবা জানান, তাঁর মেয়েকে উত্ত্যক্ত করার বিষয়টি গজুয়াকাটি গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য দেবব্রত সানার মাধ্যমে শুভজিতের বাবা-মাকে জানানো হয়। শুভজিত কিভাবে মারা গেছে, তা তাঁর জানা নেই।

খুলনা রেলওয়ে থানার ওসি ফয়জুর রহমান জানান, রেলওয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর এটি হত্যা হলে নতুন করে মামলা নেওয়া হবে। আশাশুনি থানার ওসি আব্দুস সালাম জানান, এ ঘটনায় থানায় কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা