kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৭ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪১

চারঘাটে আম বাগান কেটে পুকুর খনন

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চারঘাটে আম বাগান কেটে পুকুর খনন

রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায় আম বাগান ধ্বংস করে অবাধে চলছে পুকুর খনন। ছবি : কালের কণ্ঠ

উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাজশাহীর চারঘাটে কৃষি জমি ও বাগান ধ্বংস করে চলছে অবাধে পুকুর খনন। সরকারি অফিসের কিছু অসৎ কর্মচারী-কর্মকর্তাদের যোগসাজশে এমন ধ্বংসযজ্ঞ চললেও দেখার কেউ নেই। ফলে অনেকটা বাধাহীনভাবেই চলছে পুকুর খননের মহোৎসব। এতে শুধু কৃষি জমিই নষ্ট হচ্ছে না, পরিবেশের ওপরও বিরূপ প্রভাবের শঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া মাটি বহনকারী ট্রাক্টর চলাচলের কারণে সড়ক-মহাসড়কেরও ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। তবে উপজেলা প্রশাসনের দাবি, পুকুর খনন বন্ধে জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। বিভিন্ন সময় অভিযান চালিয়ে পুকুর খনন বন্ধ করা হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার নিমপাড়া, চারঘাট সদর, শলুয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় অবাধে চলছে পুকুর খনন। বেশির ভাগ পুকুর খননকারীরা মালিকদের কাছ থেকে জমি ইজারা নিয়ে এসব পুকুর খনন করছে। এ কাজে আম বাগানসহ বিভিন্ন ধরনের ফলের বাগান ধ্বংস করতে পিছপা হচ্ছে না তারা। এতে সাময়িকভাবে জমির মালিকরা লাভবান হলেও দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির মুখে পড়ছে পরিবেশ বৈচিত্র্য।

উপজেলার নিমপাড়া ইউনিয়নের কামিনী ফকিরপাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, জমির মালিক মহব্বত আলী দিনের বেলায় আম বাগান কেটে সাবাড় করে ফেলেছেন। এখন সেখানে কাটা হচ্ছে পুকুর। এ ব্যাপারে আম বাগানের মালিক মহব্বত আলী বলেন, ‘এ জমি উপজেলার ফতেপুর গ্রামের জরিপকে লিজ দিয়েছি। তিনি এখানে পুকুর খনন করছেন।’

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনজুর রহমান বলেন, ‘কৃষি জমি নষ্ট করে পুকুর খনন সম্পূর্ণ অবৈধ। যেসব স্থানে পুকুর খননের খবর পাওয়া যাচ্ছে সেখানে অভিযান চালাচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা। তার পরও পুকুর খনন বন্ধে জনগণকে এগিয়ে আসতে হবে।’ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, ‘উপজেলার যে প্রান্তেই পুকুর খননের সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে সেখানেই অভিযান পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা