kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৯ চৈত্র ১৪২৬। ২ এপ্রিল ২০২০। ৭ শাবান ১৪৪১

বাজিতপুরে ঋষি যুবককে পিটিয়ে হত্যা

আলাদা স্থানে আরো এক খুন, এক লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে ঋষি সম্প্রদায়ের এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলায় পাওনা টাকা চাওয়ায় প্রতিপক্ষের আঘাতে এক মুড়ি বিক্রেতা নিহত হন। ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিস্তারিত নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের খবরে :

হাওরাঞ্চল : বাজিতপুরের দিঘিরপাড় ইউনিয়নে শ্রীবাস ঋষি দাস (৩৫) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল শনিবার সকালে গ্রামের পাশে মোহন লাল ঋষি দাসের বালুর মাঠ থেকে শ্রীবাসের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তবে গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশ হত্যার কারণ উদ্ঘাটন বা কাউকে আটক করতে পারেনি। খুনিদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে গতকাল বিকেলে বড়হাটির কয়েক শ নারী-পুরুষ বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।

বাজিতপুর থানার এসআই রিয়াজুল হক জানান, খুনিরা শ্রীবাসকে মাথার পেছন দিক ও মুখমণ্ডলে আঘাত করে হত্যা করেছে। ঘটনাস্থল থেকে এক ব্যক্তির জুতা পাওয়া গেছে।

সুনামগঞ্জ : দোয়ারাবাজার উপজেলার বড়কাটা গ্রামে ২০ টাকা পাওনা নিয়ে প্রতিপক্ষের আঘাতে কুদ্দুছ মিয়া নামে এক মুড়ি বিক্রেতা মারা গেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত অপর মুড়ি বিক্রেতা ও তাঁর স্ত্রীকে আটক করেছে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, বড়কাটা গ্রামের আব্বাস মিয়া ও একই গ্রামের কুদ্দুছ মিয়া দুজনই পেশায় মুড়ি বিক্রেতা। কুদ্দুছ মিয়ার কাছে আব্বাস মিয়া ২০ টাকা পেতেন। এই টাকা নিয়ে শনিবার দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে আব্বাস ও তাঁর স্ত্রী রাহেনা বেগম কুদ্দুছকে কিলঘুষি মারতে থাকেন। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান কুদ্দুছ। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে আব্বাস ও তাঁর স্ত্রীকে আটক করে।

ভালুকা (ময়মনসিংহ) : ভালুকার মেদিলা গ্রাম থেকে গতকাল সকালে মো. সোহাগ মিয়া নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সোহাগ ওই গ্রামের মান্দিসপাড়ার নাজিম উদ্দিনের ছেলে। তিনি একটি লরির হেল্পার হিসেবে কাজ করতেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা