kalerkantho

শনিবার । ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

রানীশংকৈল

পোলট্রির বিষ্ঠায় পুকুর সয়লাব

রানীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি   

১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈলে প্রায় এক হাজার ৫০০-এর বেশি পুকুরে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে মুরগির বিষ্ঠা (লিটার) ব্যবহার করে মাছ চাষ করা হচ্ছে। তাতে দূষিত হচ্ছে পুকুরের পানি ও প্রাকৃতিক পরিবেশ। কৃষি অধিদপ্তর থেকে বিষ্ঠা থেকে জৈব সার তৈরি করে পুকুরে ব্যবহারের কথা বলা হলেও তা মানা হচ্ছে না।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার বিশেষ করে নেকমরদ থেকে ধর্মগড় পাকা রাস্তার দুই ধারের গ্রামের পুকুরে ব্যাপক হারে খামারের মুরগির বিষ্ঠা ও বর্জ্য পদার্থ ব্যবহার হচ্ছে। যা স্থানীয়ভাবে লিটার বলে পরিচিত। রাস্তার ধারে, পুকুরের পারে যত্রতত্র রেখে মাছ চাষে এসব ব্যবহারের কারণে পুকুরের পানি দূষিত হচ্ছে ও দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। দূষিত ওই পানি ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হলেও তা মানা হচ্ছে না। তা ছাড়া রাস্তার পাশে এসব পোলট্রির বিষ্ঠা ও বর্জ্য ফেলে রাখায় পথচারীদের চলাচলে অসুবিধার সৃষ্টি হচ্ছে।

রানীশংকৈল উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল জলিল জানান, উপজেলায় প্রায় সরকারি-বেসরকারি এক হাজার ৮৪৭টি পুকুর আছে। এর মধ্যে বেসরকারি এক হাজার ৬৮৩টি ও সরকারি ১৬৪টি। তবে বিশেষ করে উপজেলার নেকমরদ থেকে কাশিপুর যেতে পাকা রাস্তার ধারে কিছু মৎস্য খামারি মুরগির বিষ্ঠা যথাযথ প্রক্রিয়ায় ব্যবহার না করে সরাসরি খামার থেকে নিয়ে পুকুরে ব্যবহার করছে।

এ প্রসঙ্গে রানীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী আফরিদা জানান, মুরগির বিষ্ঠা ব্যবহারের মাধ্যমে পরিবেশ দূষণ করার কারণে মৎস্য কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা